1. admin@upokulbarta.news : admin :
  2. bangladesh@upokulbarta.news : যুগ্ম সম্পাদক : যুগ্ম সম্পাদক
  3. bholasadar@upokulbarta.news : বার্তা সম্পাদক : বার্তা সম্পাদক
সোমবার, ১৭ জুন ২০২৪, ০৩:৪৭ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
দেশ ও জাতির কল্যাণে দোয়া ঈদ উপলক্ষে রেমালে ক্ষতিগ্রস্থদের মাঝে খাদ্য বিতরণ করলো মাহাবুবা মতলেব তালুকদার ফাউন্ডেশন ৷ ভোলায় ঘুর্ণিঝড় রিমেলে ক্ষতিগ্রস্ত ২৫০ পরিবারের মাঝে ১৫ লক্ষ টাকা বিতরণ করল কোস্ট ফাউন্ডেশন বর্তমান সরকার অসহায় দুস্থদের সরকার-মেয়র শেখ আ: রহমান জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবেলায় পরিকল্পনা আছে বটে, কিন্তু বাস্তবায়নে বাজেট নেই বাগেরহাটে কলেজ শিক্ষকদের বেসিক আইসিটি প্রশিক্ষণের সনদ প্রদান বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে ফকিরহাটের নবনির্বাচিত চেয়ারম্যানগণের শ্রদ্ধা নিবেদন সাতক্ষীরায় নাগরিক সংলাপ জলবায়ু সংকটে নিপতিত সাতক্ষীরায় বাসযোগ্য ও পরিকল্পিত নগর গড়ে তোলার আহবান মানারাতুল উম্মাহ মডেল মাদরাসার অভিভাবক সমাবেশ ও সবক অনুষ্ঠান মোহনপুরে পিজি সদস্যদের পোল্ট্রি খাদ্য ও উপকরন বিতরণ

উচ্চ ফলনশীল নতুন ৩ জাতের আম অবমুক্তের অনুমোদন

যুগ্ম সম্পাদক
  • আপডেট সময় : সোমবার, ১৭ এপ্রিল, ২০২৩
  • ১৪৪ বার পঠিত

মোঃ আলাউদ্দীন মন্ডল রাজশাহীঃ
আরও তিনটি নতুন জাতের আম উদ্ভাবন করেছে চাঁপাইনবাবগঞ্জের আঞ্চলিক উদ্যানতত্ত্ব গবেষণা কেন্দ্র। সম্প্রতি জাতীয় বীজ বোর্ড বারি-১৫, বারি-১৬ ও বারি-১৭ নামের আমের অবমুক্তের অনুমোদন দিয়েছে।তিনটি জাতের আমই নাবি জাতের, অর্থাৎ মৌসুমে শেষ দিকের। সবগুলোই উচ্চফলনশীল। প্রতিবছর ফলন দেয়। আকার ও ওজনের দিক থেকেও ভালো। সবগুলোই আধা কেজির বেশি ওজন। রোগবালাইও কম।
চাঁপাইনবাবগঞ্জ আঞ্চলিক উদ্যানতত্ত্ব গবেষণা কেন্দ্রের মুখ্য বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা (সিএসও) হরিদাস মোহন্ত বলেন, ‘এই কেন্দ্রে ১০ থেকে ১৫ বছর গবেষণার ফলাফল বিশ্লেষণ করে জাতীয় বীজ বোর্ড নতুন তিনটি জাতের আম অবমুক্তের অনুমোদন দিয়েছে। একযোগে অবমুক্ত হওয়ায় আমরা দারুণ উৎসাহিত বোধ করছি। আমাদের বিশ্বাস, আমপ্রেমীরা পছন্দের তালিকায় তিনটি আমকেই সাদরে স্থান দেবেন। আমচাষিরাও লাভবান হবেন।’
নতুন তিনটি জাতের আম উদ্ভাবনের কাজে দীর্ঘদিন জড়িত ছিলেন কেন্দ্রের প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা জমির উদ্দীন। একটি রঙিন জাতের আমের পর এবার একযোগে তিনটি নতুন জাতের আম অবমুক্ত হওয়ায় উচ্ছ্বসিত জমির উদ্দীন।
বারি আম-১৫ (সৌদামিনি)–এর গড় ওজন ৬৮০ গ্রাম। উচ্চফলনশীল, নিয়মিত ফল দানকারী ও নাবিজাত। সংগ্রহকাল জুলাই মাসের শেষ সপ্তাহ পর্যন্ত। পাকলে ফলের ত্বকের রং হলুদাভ সবুজ, শাঁসের রং হলুদ। রসাল এই আম আঁশবিহীন। ভক্ষণযোগ্য অংশ ৮২ দশমিক ৩৫ ভাগ। রোগবালাই তেমন নেই। বাংলাদেশের সর্বত্র চাষ করা যাবে।
বারি আম-১৬–এর গড় ওজন ৫৭১ গ্রাম। সংগ্রহকাল জুলাই থেকে আগস্টের শেষ সপ্তাহ পর্যন্ত। পাকা আমের ত্বকের রং হালকা কমলা। শাঁস কমলা রঙের। রসাল ও আঁশবিহীন। এ আমও বাংলাদেশের সব স্থানেই চাষ করা যাবে।

এ জাতীয় আরও খবর

ফেসবুকে আমরা