1. admin@upokulbarta.news : admin :
  2. bangladesh@upokulbarta.news : যুগ্ম সম্পাদক : যুগ্ম সম্পাদক
  3. bholasadar@upokulbarta.news : বার্তা সম্পাদক : বার্তা সম্পাদক
রবিবার, ২১ জুলাই ২০২৪, ১২:৫১ অপরাহ্ন

বোরহানউদ্দিনে রাইস ট্রান্সপ্লান্টারের মাধ্যমে ধানের চারা রোপণ

ব্যবস্থাপনা সম্পাদকঃ
  • আপডেট সময় : বৃহস্পতিবার, ৯ ফেব্রুয়ারি, ২০২৩
  • ১৪৮ বার পঠিত

জেএম.মমিন, বোরহানউদ্দিনঃ

আধুনিক যন্ত্র নির্ভর পদ্ধতিতে রাইস ট্রান্সপ্লান্টারের মাধ্যমে বোরো ধানের চারা রোপণ করেছে দ্বীপ জেলার বোরহানউদ্দিন উপজেলার কৃষকরা । কৃষিকে যান্ত্রিকীরণের ফলে শ্রমিক ও মজুর সংকট, অতিরিক্ত খরচ সাশ্রয় ,ফসল পর্যবেক্ষণ,১০ ভাগ চারা সাশ্রয়,করে উপকূলীয় চাষীরা লাভবান হচ্ছেন । এই যন্ত্রের সাহায্য সমগভীরতায়, সম দূরত্বে এবং অল্প শ্রমে কৃষকরা ধানের চারা রোপন করছেন। এতে সময় কম লাগবে, খরচ কমবে এবং ফলন বাডবে এমন দাবী কৃষক ও কৃষি বিভাগের।

বোরহানউদ্দিন উপজেলার কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপÍর জানান,চলতি বছরে বোরো আবাদের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে ১০ হাজার ৮০০ হেক্টর।এখন পর্যন্ত অর্জিত হয়েছে ৬ হাজার ৩০০ হেক্টর।লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে বেশি অর্জণের আশাবাদ ব্যক্ত করেন সংশ্লিষ্ট বিভাগ।

বড় মানিকা ইউনিয়নের ৭ নং ওয়ার্ডের কৃষক নাসিম,রিয়াজ আব্দুল খালেক, আওলাদ হোসেন বলেন, আগে হেক্টর প্রতি জমিতে ধানের চারা রোপন করতে ৩০-৩৫ জন শ্রমিক লাগতো । এতে করে প্রায় ২১ হাজার ৬১২টাকা খরচ হতো। এখন রাইস ট্রান্সপ্লান্টারের মাধ্যমে চারা রোপন করতে বর্তমানে হেক্টর প্রতি খরচ হয় ১২ হাজার ৩৫০ টাকা । ফলে খরচ সাশ্রয় হয় ৯ হাজার ২৬২টাকা।অন্যদিকে হেক্টর প্রতি ১০ভাগ ফলন বাড়বে ।

আওলাদ ও নাছিম সহ কয়েকজন কৃষক বলেন, আগে রাইস ট্রান্সপ্লান্টার যান্ত্রিকীকরণ পদ্ধতিতে ধানের চারা রোপণ করার কোনো ধারণা ছিল না।বর্তমান কৃষি কর্মকর্তার পরামর্শে ও সহায়তায় আমরা এ বছর প্রথমবারের মতো ৭০ একর জমি বোরো আবাদের আওতায় আনবো। ফসল উৎপাদনে প্রযুক্তির ব্যবহার ও উন্নত জাত ব্যবহারের পরামর্শ দিচ্ছে কৃষি অফিস। তাদের পরামর্শে স্বল্প সময়ে অধিক উৎপাদনে প্রযুক্তির ব্যবহারে ঝুঁকছেন চাষীরা।। এখন শ্রমিকদের অপেক্ষায় দিন গুণতে হয় না কৃষকদের

উপসহকারি কৃষি কর্মকর্তা মিজানুর রহমান রনি,নাছির উদ্দিন, আশ্রাফুল ইসলাম শিমূল হাওলাদার বলেন, বীজতলায় যে ধানের চারা দ্ওেয়া হয়, চারা তোলার সময় ধান গাছের চারায় আঘাত লাগে এবং মুল নষ্ট হয়। ওই এতে ফলনও কম হয়। মেশিনের সাহায্যে একটি চারা নষ্ট হয় না,। রাইস প্লান্টার মেশিনের মাধ্যমে ১ ইঞ্চি মাটিতে ১২০ গ্রাম ধান দিয়ে চারা লাগানো হয়।যা দিয়ে প্রতি শতাংশ জমি চাষ করা যায়। এ পদ্ধতিতে একই সাথে ৬টি লাইন করে ধান লাগানো যায়।যার প্রতিটি সারির দুরত্ব হয় ৮ থেকে ১০ ইঞ্চি।

বোরহানউদ্দিন উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ এইচ.এম.শামীম বলেন, রাইস প্লান্টার পদ্ধতি শ্রম,সময়,অর্থৃ সাশ্রয়ের একটি আধুনিক পদ্ধতি ।যা কৃষিকে যান্ত্রিকিরণের একটি সময়োপযুগী মাধ্যম।এতে ফসলের মাঠের আন্ত:পরিচর্যা,চারার গুনগত মান ঠিক থাকে।ফলন বৃদ্ধি হয়। সরকার ভর্তুকির মাধ্যমে কৃষকদের ধানের চারা রোপনের জন্য রাইস প্লান্টার যন্ত্র ও ধান কাটার জন্য কম্বাইন হারভেস্টার মেশিনসহ কৃষির আধুনিক কৃষি যন্ত্র সরবরাহ করছেন।

এ জাতীয় আরও খবর

ফেসবুকে আমরা