1. admin@upokulbarta.news : admin :
  2. bangladesh@upokulbarta.news : যুগ্ম সম্পাদক : যুগ্ম সম্পাদক
  3. bholasadar@upokulbarta.news : বার্তা সম্পাদক : বার্তা সম্পাদক
শুক্রবার, ২৪ মে ২০২৪, ১২:২৬ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
ভোলার লালমোহনে পুলিশকে মারধরের ঘটনায় মামলা, আটক-৩ ভোলায় কঠোর নিরাপত্তার মধ্য দিয়ে অনুষ্ঠিত হচ্ছে ৩ উপজেলা নির্বাচন ধলীগৌরনগর ইউপি নির্বাচনে মঞ্চ লুঙ্গী পড়া মানুষের জন্য বিশাল পথসভায় নেহাল পাটোয়ারী ভাইস চেয়ারম্যান থেকে চেয়ারম্যান হলেন ইউনুস, ভোলার ৩ উপজেলায় নির্বাচন সাতক্ষীরার ইছামতি নদীতে ভারতীয় নাগরিকের মরদেহ উদ্ধার! রাজশাহীতে পুষ্টি বিষয়ক মাল্টি সেক্টরাল সমন্বিত কর্মশালা অনুষ্ঠিত রামপালে মেধাবী অন্বেষণ কুইজ প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত রামপালে গলায় ফাঁস দিয়ে যুবক যুবতীর আত্মহত্যা ধলীগৌরনগর ইউপি নির্বাচন- সুখেদুঃখে মানুষের পাশে থাকবেন সংরক্ষীত সদস্য প্রার্থী নাসিমা লালমোহন উপজেলা নির্বাচন২৪ নির্বাচিত হলে বদরপুরে সবচেয়ে বেশি উন্নয়ন করবো-প্রার্থী আকতার হোসেন

প্লাস্টিকের ভিড়ে বিলুপ্ত ঐতিহ্যবাহী মৃৎশিল্প

রেডিও মেঘনা
  • আপডেট সময় : সোমবার, ১৫ এপ্রিল, ২০২৪
  • ৮৮ বার পঠিত
ঐতিহ্যবাহী মৃৎশিল্প তৈরী করছেন চরফ্যাসনের প্রেমিকা রানী পাল

সুরভী ও অধরা ইসলামঃ

কয়েক বছর আগেও গ্রাম বাংলার ঐতিহ্যবাহী মেলাগুলোতে মাটির তৈরি বিভিন্ন ধরনের খেলনার পসরা বসতো। বিশেষ করে ঈদ কিংবা বৈশাখী মেলায় মাটির তৈরি নানা রঙয়ের কারুকার্য করা হাঁড়ি-পাতিল, পুতুল, নৌকা, পালকি, হাতি, ঘোড়া, টিয়াপাখিসহ বিভিন্ন ধরনের ছোট ছোট খেলনা বিক্রি হতো। বর্তমানে প্লাস্টিক পণ্যের দাপটে হারিয়ে গেছে সেই ঐতিহ্য। টিকতে না পেরে অনেকে পেশা বদল করেছেন। তবে কষ্ট করেও বাপ-দাদার পেশা ধরে রাখার চেষ্টা করছেন কেউ কেউ।
জিন্নাগড় এলাকার মৃৎশিল্পী বাস্কর চন্দ্র জানান, বৈশাখি উৎসবে বিভিন্ন এলাকায় আয়োজিত মেলায় আগতরা সখের বসে মাটির তৈরি পুতুল, ঘোড়া, হাতি ও পালকিসহ কারুকার্যকৃত মাটির তৈরী ইত্যাদি খেলনা কিনে থাকে। গত তিন বছর করোনাকালে মেলার আয়োজন বন্ধ থাকায় জেলার মৃৎশিল্পীরা কার্যত বেকার জীবন কাটিয়েছে এবছরই প্রথম বৈশাখির মেলার আয়োজন করায় তাই আগে থেকে মাটির তৈরী খেলনা তৈরীতে ব্যস্ত সময় পার করছেন এবং বেশ ভালো লাভবান হওয়ার আশা প্রকাশ করেন।
প্রেমিকা রানী বলেন, বিয়ের পর শাশুড়ির কাছ থেকেই মাটির খেলনা তৈরী শিখেছেন। এখনো সেই ঐতিহ্য ধরে রাখতে বছরে একবার বৈশাখী উৎসবের সময় তৈরী করেন বিভিন্ন খেলানা। তবে মাটির খেলনার চাহিদা কম থাকায় আয় তেমন হয়না। তারপরেও ভালো লাগা থেকেই তৈরী করছেন মাটির ঘোরা হাতি পালকি,ঘরসহ বিভিন্ন খেলানা।

এ জাতীয় আরও খবর

ফেসবুকে আমরা