1. admin@upokulbarta.news : admin :
শনিবার, ০২ মার্চ ২০২৪, ০৯:৪১ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
পশ্চিম চর উমেদ ইউপি নির্বাচন চেয়ারম্যান নির্বাচিত হলে ইভটিজিং বন্ধ করবেন সালেম হাওলাদার ভোলায় সাংবাদিক মহিউদ্দিনের উপর হামলায় গণমাধ্যমে নিন্দা-প্রতিবাদের ঝড় যৌতুকের দাবিতে পুত্রবধূকে মারধরের অভিযোগ শশুর শাশুড়ির বিরুদ্ধে মাছ শিকারে ২ মাসের নিষেধাজ্ঞা শুরু মেঘনা ও তেঁতুলিয়া নদীতে গুরু -আঃ সামাদ ভোলার লালমোহন পশ্চিম চর উমেদ ইউপি নির্বাচন লালমোহন পশ্চিম চর উমেদ ইউপি নির্বাচন শিক্ষার মানোন্নয়ন করতে চান চেয়ারম্যান প্রার্থী অধ্যক্ষ সেলিম নারীর গুণ – আঃ সামাদ দৌলতখানে যুব রেড ক্রিসেন্টে দলনেতা মাশরাফি উপ-নেতা ইমতিয়াজ ও রহিমা মোংলায় ৫ শতাধিক চক্ষু রোগীকে বিনামূল্যে চিকিৎসা সেবা প্রদান

জনবল সংকটে খুঁড়িয়ে খুঁড়িয়ে চলছে মনপুরায় পরিবার পরিকল্পনা সেবা

যুগ্ম সম্পাদকঃ
  • আপডেট সময় : সোমবার, ৯ জানুয়ারি, ২০২৩
  • ১০২ বার পঠিত

সীমান্ত হেলাল, মনপুরা (ভোলা) প্রতিনিধি \
ঝকঝকে সুন্দর ভবন দাঁড়িয়ে থাকলেও বহু পদশুন্য থাকায় জনবল সংকটে খুঁড়িয়ে খুঁড়িয়ে চলছে ভোলার মনপুরা উপজেলা পরিবার পরিকল্পনা কার্যক্রম। মেডিকেল অফিসার (এমসিএইচএফপি), সহকারি পরিবার কল্যান কর্মকর্তা, ইউনিয়ন সুপার ভাইজার (এফপিআই), পরিবার কল্যান সহকারি (মাঠকর্মি), পরিবার কল্যান পরিদর্শিকা (মাঠকর্মি), উপ সহকারি কমিউনিটি মেডিকেল সহকারি (সেকমো) ও অফিস সহায়ক সহ বিভিন্ন পদে দীর্ঘদিন ধরে বহু কর্মকর্তা-কর্মচারী পদশুন্য থাকায় পরিবার পকিল্পনা সেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে দ্বীপ উপজেলার মানুষ। এদিকে প্রত্যেক পদে একাধিক জনবল সংকট থাকায় সেবা কার্যক্রম যথাযথভাবে পরিচালনা করা সম্ভব হচ্ছেনা বলে জানিয়েছে কর্তৃপক্ষ।

এদিকে উপজেলার দক্ষিণ সাকুচিয়া মা ও শিশু কল্যান কেন্দ্রে ১ জন পরিবার কল্যান পরিদর্শিকা (এফডবিøউভি) ও ১ জন উপ সহকারি কমিউনিটি মেডিকেল সহকারি (সেকমো) থাকার কথা থাকলে নেই কোন কর্মি। এই কেন্দ্রটি ইতোমধ্যে ৩ জন এনজিও কর্মি দিয়ে কার্যক্রম পরিচালিত হচ্ছে। এসব এনজিও কর্মিদের মাধ্যমে মাতৃত্বকালীন সেবা দেয়া হয়। পাশাপাশি সন্তান প্রসবকালীন সময়ে স্বাভাবিক প্রসব (নরমাল ডেলিভারী) সেবা দেয়া হচ্ছে।

মনপুরা উপজেলা পরিবার পরিকল্পনা অফিস সূত্রে জানা যায়, উপজেলার নারী-পুরুষদের মাঝে পরিবার পরিকল্পনা সেবা প্রদান, মাতৃত্বকালীন সেবা ও শিশুদের প্রয়োজনীয় সেবা প্রদানের জন্য উপজেলা কার্যালয়ে কর্র্মকর্তা-কর্মচারীর সর্বমোট পদ রয়েছে ২৮ টি। এর মধ্যে রয়েছে পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ১ জন, সহকারি পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ১ জন। কিন্তু মেডিকেল অফিসার (এমসিএইচএফপি) ১ জন থাকার কথা থাকলেও পদটি দীর্ঘদিন যাবৎ শুন্য রয়েছে। স্থায়ী মেডিকেল অফিসার না থাকায় পরিবার পরিকল্পনার স্থায়ী ও দীর্ঘমেয়াদী পদ্ধতিসমূহ বন্ধ রয়েছে। মাঝেমাঝে অন্য উপজেলা থেকে ডাক্তার এনে ক্যাম্প করানো হয়। এছাড়াও উপজেলা পরিবার পরিকল্পনা সহকারি ৩ জন কর্মরত আছেন। সহকারি পরিবার কল্যান কর্মকর্তা ১ জন থাকার কথা থাকলেও পদটিতে কখনোই কাউকে পদায়ন করা হয়নি। ইউনিয়ন সুপার ভাইজার (এফপিআই) ৩ জনের মধ্যে রয়েছেন ২ জন। পরিবার কল্যান সহকারি (মাঠকর্মি) ১০ জন থাকার কথা থাকলেও কর্মরত রয়েছেন ৬ জন। পরিবার কল্যান পরিদর্শিকা (মাঠকর্মি) ৩ জনের মধ্যে ৩ টি পদই শুন্য রয়েছে দীর্ঘনি যাবৎ। উপ সহকারি কমিউনিটি মেডিকেল অফিসার (সেকমো) পদটিতে ১ জনের স্থলে রয়েছে পদশুন্য। এছাড়াও ২ জন অফিস সহায়কের স্থলে নেই কোন লোকবল। উপজেলা সদর ক্লিনিকে ১ জন আয়া ছাড়া নেই কোন কর্মি।

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মধ্যে পরিবার পরিকল্পনা কার্যালয়ের সুদৃশ্য নতুন ভবন নির্মান করা হলেও প্রকৃত অর্থে পরিবার পরিকল্পনা সেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে মনপুরা উপজেলার লক্ষাধিক মানুষ। এই কার্যালয়ে মোট ২৮ টি পদ থাকলেও সেবামূলক ১৩ টি পদ শুন্য রয়েছে। শুন্য পদগুলো সেবা সংশ্লিষ্ট হওয়ায় কার্যত অকার্যকর ও স্থবির হয়ে রয়েছে পরিবার পরিকল্পনা সেবা কার্যক্রম।

উপজেলা পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ছেরাজ আহমদ বলেন, আমাদের উপজেলা কার্যালয়ে অবকাঠামোগত উন্নয়নের পাশাপাশি পর্যাপ্ত ঔষধ রয়েছে। তবে জনগুরুত্বপূর্ণ পদগুলোতে পদায়ন না থাকায় পরিবার পরিকল্পনা সেবা ব্যাহত হচ্ছে। উর্ধ্বতন কর্মকর্তা বরাবর লিখিতভাবে জানানো হয়েছে। আশা করি দ্রæত জনবল সংকট নিরশন হবে।

উল্লেখ্য; ২০২২ সালের ডিসেম্বর মাসে সারাদেশে বিপুল সংখ্যক পরিবার কল্যান পরিদর্শিকা নিয়োগ দেয়া হলেও মনপুরা কার্যালয়ে কাউকে পদায়ন করা হয়নি।

এ জাতীয় আরও খবর

ফেসবুকে আমরা