1. admin@upokulbarta.news : admin :
মঙ্গলবার, ০৪ অক্টোবর ২০২২, ০৩:৪৬ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
যুবক সজিবঃ যুবকদের অনুপ্রেরণা মানববন্ধন করে হয়রানি ও মানহানি করার প্রতিবাদে ভোলায় সংবাদ সম্মেলন ভোলার ভেদুরিয়ায় ভূমিদস্যু দুলাল বাউলীর বিরুদ্ধে এলাকাবাসীর মানববন্ধন শহীদ ক্যাপ্টেন শেখ কামাল স্পেটিং ক্লাবের উদ্বোধন উপলক্ষে ফুটবল প্রীতি ম্যাচ অনুষ্ঠিত সিদ্ধিরগঞ্জে চুরির অপবাদ দিয়ে ফাঁকা স্ট্যাম্পে স্বাক্ষর রেখে গাড়ি চালকের ক্ষতির চেষ্টা মেট্রোরেলের দ্বাদশ চালান নিয়ে মোংলা বন্দরে ট্রাম্প জাসদের ৫০ তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী ও সুবর্ণ জয়ন্তী উপলক্ষে ভোলায় মশাল মিছিল দশমিনা উপজেলার সিপিপি স্বেচ্ছাসেবকদের মধ্যে গিয়ার বিতরন অনুষ্ঠানে ২০২২ শেখ হাসিনার নেতৃত্বে এদেশে সকল ধর্মের মানুষে শান্তিপূর্ণভাবে বসবাস করছে-এমপি শাওন গানের শুরে নেশাকে না বলুন লালমোহনে মঞ্চ মাতালেন ডি আইজি আক্তারুজ্জামান

ভোলায় দৌলতখানে,’আমার মৃত্যুর জন্য কেউ দায়ী নয়’ লিখে নিজের পাগড়ি দিয়ে মসজিদের ইমামের আত্মহত্যা

উপকূল বার্তা ডেস্কঃ
  • আপডেট সময় : মঙ্গলবার, ১৩ সেপ্টেম্বর, ২০২২
  • ২০ বার পঠিত

দৌলতখান (ভোলা) প্রতিনিধি:

ভোলার দৌলতখান উপজেলায় চিরকুটে ‘ আমার মৃত্যুর জন্য কেউ দায়ী নয়’ লিখে নিজের পাগড়ি দিয়ে মো. আব্দুল হালিম (২৪) নামের এক মসজিদের ইমাম আত্মহত্যা করেছে। নিহত আব্দুল হালিম সদর উপজেলার ভেলুমিয়া ইউনিয়নের চন্দ্রপ্রসাদ গ্রামের মো. ফারুক ফরাজীর ছেলে ও দৌলতখান উপজেলার চরপাতা ইউনিয়নের হাসমত বেপারীর বাড়ির দরজার মসজিদের ইমাম।মঙ্গলবার (১৩ সেপ্টেম্বর) সকালে উপজেলার হাসমত বেপারীর মসজিদের ইমামের রুম থেকে তাঁর ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার করা হয়। এসময় ওই রুম থেকে আব্দুল হালিমের লেখা একটি চিরকুট উদ্ধার করা হয়।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, সোমবার দিবাগত রাতে ইমাম আব্দুল হালিম এশার নামাজ পড়িয়ে মসজিদের সাথে তার রুমে চলে যায়। রাত ১২টার দিকে সে সকল আত্মীয়-স্বজনের মোবাইলে তিনি বেঁচে থাকবেন না বলে একটি খুদে বার্তা পাঠায়। পরে তার মোবাইলে স্বজনরা একাধিকবার কল করলেও তিনি তা রিসিভ করেনি। এ অবস্থায় তাঁর ভগ্নিপতি রাসেদ রাত সাড়ে তিনটার দিকে ওই মসজিদে আসেন। মসজিদে এসে আব্দুল হালিমের রুমের ফ্যানের সাথে ঝুলন্ত অবস্থায় তাঁর লাশ দেখতে পেয়ে ভয়ে ডাক চিৎকার দিলে স্থানীয়রা ছুটে আসে। পরে দৌলতখান থানায় খবর দিলে পুলিশ এসে লাশ উদ্ধার করে।

পুলিশ জানায়, নিহত আব্দুল হালিমের রুমের ফ্যানের সাথে পাগড়ি দিয়ে তিনি গলায় ফাঁস দিয়েছে। রুম থেকে ঝুলন্ত অবস্থায় তাঁর মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। সেই সাথে একটি চিরকুট উদ্ধার করা হয়েছে। চিরকুটে লেখা রয়েছে ‘আমার মৃত্যুর জন্য কেউ দায়ী নয়। মৃত্যুর পর তাঁর লাশ ময়না তদন্তের জন্য প্রশাসনের কাছে না দেয়ার অনুরোধ জানান। সেই সাথে তাঁর ৪ মাসের সন্তানের দিকে খেয়াল রাখার কথাও লিখেছেন। এবং তার কাছ থেকে কারা কারা টাকা পাবে সেটিও চিরকুটে উল্লেখ করেছেন।
পুলিশ আরো জনায়, আব্দুল হলিম মসজিদে ইমামতির পাশাপাশি দৌলতখানের চর খলিফা মাদরাসায় পড়ালেখা করতেন। তিনি গত দুই বছর আগে বিয়ে করেছেন। এবং তার ৪ মাস বয়সী একটি সন্তান রয়েছে। গত এক সপ্তাহ আগে তার স্ত্রী চার মাসের সন্তান রেখে চলে গেছে। পারিবারিক এ সকল বিষয় ও ঋণগ্রস্ত হয়ে আব্দুল হালিম হতাশায় ভুগছিলেন। আর এসকল হতাশা থেকেই সে আত্মহত্যা করেছে বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করছে পুলিশ।

দৌলতখান থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. জাকির হোসেন জানান, ঘটনাস্থল থেকে নিহতের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। পরিবারের কোনো অভিযোগ না থাকায় লাশ হস্তান্তরের প্রক্রিয়া চলছে। তবে এ ঘটনায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করা হবে।

এ জাতীয় আরও খবর

ফেসবুকে আমরা