1. admin@upokulbarta.news : admin :
মঙ্গলবার, ০৪ অক্টোবর ২০২২, ০৩:১৩ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
যুবক সজিবঃ যুবকদের অনুপ্রেরণা মানববন্ধন করে হয়রানি ও মানহানি করার প্রতিবাদে ভোলায় সংবাদ সম্মেলন ভোলার ভেদুরিয়ায় ভূমিদস্যু দুলাল বাউলীর বিরুদ্ধে এলাকাবাসীর মানববন্ধন শহীদ ক্যাপ্টেন শেখ কামাল স্পেটিং ক্লাবের উদ্বোধন উপলক্ষে ফুটবল প্রীতি ম্যাচ অনুষ্ঠিত সিদ্ধিরগঞ্জে চুরির অপবাদ দিয়ে ফাঁকা স্ট্যাম্পে স্বাক্ষর রেখে গাড়ি চালকের ক্ষতির চেষ্টা মেট্রোরেলের দ্বাদশ চালান নিয়ে মোংলা বন্দরে ট্রাম্প জাসদের ৫০ তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী ও সুবর্ণ জয়ন্তী উপলক্ষে ভোলায় মশাল মিছিল দশমিনা উপজেলার সিপিপি স্বেচ্ছাসেবকদের মধ্যে গিয়ার বিতরন অনুষ্ঠানে ২০২২ শেখ হাসিনার নেতৃত্বে এদেশে সকল ধর্মের মানুষে শান্তিপূর্ণভাবে বসবাস করছে-এমপি শাওন গানের শুরে নেশাকে না বলুন লালমোহনে মঞ্চ মাতালেন ডি আইজি আক্তারুজ্জামান

ভোলায় সংখ্যালঘুর জমি দখলের অভিযোগ

সহকারী সম্পাদক
  • আপডেট সময় : রবিবার, ৪ সেপ্টেম্বর, ২০২২
  • ৩৮ বার পঠিত

আশিকুর রহমান শান্ত

ভোলার বোরহানউদ্দিন উপজেলার কাচিয়া ইউনিয়নে চিন্ময় দে নামে এক সংখ্যালঘুর ৩২ শতাংশ জমি জবরদখলের অভিযোগ উঠেছে ওই ইউনিয়নের (ইউপি) চেয়ারম্যান আব্দুর রব কাজীর জামাতা মো. মঞ্জুর আলম লিটনের বিরুদ্ধে। জবরদখল করে লিটন ১লা সেপ্টেম্বর রাতে ওই জমিতে বালু ফেলে ভরাটের কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন বলেও জানান ভুক্তভোগী চিন্ময় দে।

তবে অভিযুক্ত লিটন বলছে, জবরদখল নয়, বরং তাঁর (লিটনের) ভোগদখল করা জমি জোরপূর্বক দখল করার চেষ্টা করছেন চিন্ময় দে।

চিন্ময় দে সাংবাদিকদের কাছে অভিযোগ করে বলেন, বোরহানউদ্দিন উপজেলা কাচিয়া ইউনিয়নের চকটোষ মৌজার ৩২ শতাংশ জমির মালিক ছিলেন তাঁর দাদা ক্ষেত্র মোহন দে। তাঁর মৃত্যুর পর তাঁর ছেলে (চিন্ময় দের পিতা) রমেন্দ্র নারায়ণ দে ওই জমি ওয়ারিশ সূত্রে ভোগদখল করছিলেন। পরে রমেন্দ্র নারায়ণের মৃত্যুর পর তাঁর দুই ছেলে চিন্ময় দে ও হিরন্ময় দে ওই জমির মালিক হন। দীর্ঘ কয়েকবছর চিন্ময় দে ওই জমি ভোগদখল করে আসছেন। প্রতিবছর জমির খাজনাও পরিশোধ করছেন। ৮৩১ খতিয়ানের ২০৬১ দাগের ওই জমির এসএ ও বিএস খতিয়ান তার বাবা রমেন্দ্র নারায়ণের নামে রয়েছে। তারপরও গত ১লা সেপ্টেম্বর রাতে ওই ইউনিয়নের (ইউপি) চেয়ারম্যান আব্দুর রফ কাজীর জামাতা মঞ্জুর আলম লিটন চেয়ারম্যানের ইন্ধনে ওই জমিতে বালু ফেলে ভরাটের কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন। লিটনের সঙ্গে তাঁর ছেলে হ্নদয় ও মিরাজ প্রভাব খাটিয়ে সন্ত্রাসী তান্ডব শুরু করছেন বলেও অভিযোগ ভুক্তভোগীর।

চিন্ময় দে আরও জানান, ১লা সেপ্টেম্বর রাতে তাঁর জমি জবরদখল করে বালু দিয়ে ভরাটের কাজ যখন চলছে। তখন তিনি নিরুপায় হয়ে ৯৯৯-এ কল দিয়েছিলেন। বোরহানউদ্দিন থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গেলেও বালু ভরাটের কাজ বন্ধ করেনি বলেও অভিযোগ করেন তিনি।

এবিষয়ে অভিযুক্ত মঞ্জুর আলম লিটন সাংবাদিকদের জানান, তিনি কারো জমি জবরদখল করছেন না। তিনি মনোরঞ্জন কৃষ্ণর কাছ থেকে ২০৬১ দাগের ৩২ শতাংশ জমি ক্রয় করেছিলেন। সেই জমিতেই তিনি বালু ফেলে ভরাটের কাজ করছেন। তবে তিনি উপস্থিত সাংবাদিকদের জমির কোনো কাগজপত্র দেখাতে পারেননি। তাঁর অভিযোগ চিন্ময় দে কারনে অকারণে তাকে হয়রানি করে আসছেন।

বোরহানউদ্দিন থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মনিরুল ইসলাম জানান, তিনি সম্প্রতি বোরহানউদ্দিন থানায় যোগদান করেছেন। এ বিষয়টিতে তিনি অবগত নন। তারপরও ভুক্তভোগী বোরহানউদ্দিন থানায় অভিযোগ করলে পুলিশ ঘটনাটি খতিয়ে দেখে আইনানুগ ব্যবস্থা নিবে।

এ জাতীয় আরও খবর

ফেসবুকে আমরা