1. admin@upokulbarta.news : admin :
  2. bangladesh@upokulbarta.news : যুগ্ম সম্পাদক : যুগ্ম সম্পাদক
  3. bholasadar@upokulbarta.news : বার্তা সম্পাদক : বার্তা সম্পাদক
বৃহস্পতিবার, ২০ জুন ২০২৪, ০১:১৩ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
নানা আয়োজনে পলিত হচ্ছে দৈনিক পত্রদূত সম্পাদক স.ম আলাউদ্দীন মৃত্যুবার্ষিকী সাতক্ষীরায় ২৪১ জনের মাঝে ১৭ লাখ টাকার অনুদানের চেক বিতরণ কুমিল্লায় দেশ ও জাতির কল্যাণে দোয়া ঈদ উপলক্ষে রেমালে ক্ষতিগ্রস্থদের মাঝে খাদ্য বিতরণ করলো মাহাবুবা মতলেব তালুকদার ফাউন্ডেশন ৷ ভোলায় ঘুর্ণিঝড় রিমেলে ক্ষতিগ্রস্ত ২৫০ পরিবারের মাঝে ১৫ লক্ষ টাকা বিতরণ করল কোস্ট ফাউন্ডেশন মোংলায় দিন দুপুরে দোকান ঘর ভাংচুর ও জবর দখলের চেষ্টা বর্তমান সরকার অসহায় দুস্থদের সরকার-মেয়র শেখ আ: রহমান জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবেলায় পরিকল্পনা আছে বটে, কিন্তু বাস্তবায়নে বাজেট নেই বাগেরহাটে কলেজ শিক্ষকদের বেসিক আইসিটি প্রশিক্ষণের সনদ প্রদান বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে ফকিরহাটের নবনির্বাচিত চেয়ারম্যানগণের শ্রদ্ধা নিবেদন

প্রভাবশালীদের নিষিদ্ধ জালে নিঃস্ব মেঘনার সাধারণ জেলেরা

সহকারী সম্পাদক
  • আপডেট সময় : শনিবার, ১০ ফেব্রুয়ারি, ২০২৪
  • ৮৯ বার পঠিত

ভোলা প্রতিনিধি।

ভোলার মেঘনা-তেতুলিয়া নদীতে নিষিদ্ধ খুটাজাল ও চরঘেরা জালের ফাঁদে প্রতিনিয়তই ধ্বংস হচ্ছে ইলিশসহ বিভিন্ন মাছের কোটি কোটি রেনুপোনা। এতে দেখা দিয়েছে মাছের আকাল। ফলে একদিকে যেমন জেলেদের জীবন জীবিকার ওপর প্রভাব পড়ছে, অন্যদিকে হুমকির মুখে পড়ছে জীববৈচিত্র্য।

দেশের দ্বীপজেলা ভোলার তিন দিকে রয়েছে মেঘনা ও তেঁতুলিয়া নদী আর একদিকে বঙ্গোপসাগর। ফলে এখানকার প্রায় তিন লাখেরও বেশি মানুষ মাছ ধরার ওপর নির্ভরশীল। এক সময় সারা বছরই ভোলার মেঘনা-তেঁতুলিয়া নদীতে কমবেশি ইলিশ পাওয়া যেত।
কিন্তু চলতি মৌসুমে কাঙ্খিত ইলিশের দেখা মিলছে না। ফলে মানবেতর জীবন যাপন করতে হচ্ছে জেলেদের।

বেশি লাভের আশায় প্রভাবশালী কিছু অসাধু জেলে নিষিদ্ধ খুটাজাল, চরঘেরা জাল ও মশারি জাল ব্যবহার করে জাটকাসহ অন্যান্য মাছের রেনু পোনা নষ্ট করছে বলে অভিযোগ মৎস্যজীবী ও আড়তদারদের।প্রশাসনের লোকজন এর সঙ্গে জড়িত বলেও অভিযোগ তাদের।

জেলেরা জানান, ওই সব জালে ছোট-বড় সব ধরনের মাছই ধরা পড়ে। এমনকি কীটপতঙ্গ পর্যন্ত রক্ষা পায় না ওই জাল থেকে। পরিবেশ অধিদপ্তর মনে করছে এতে চরম হুমকির মুখে পড়বে পরিবেশ ও নদী।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক জেলেরা জানান, প্রতিদিনই নদীতে জাল ফেলতে গিয়ে মেঘনার প্রবল স্রোতে তাদের জাল খরচি জালের খুঁটির সাথে জড়িয়ে যায়। এরপর ওই জাল আর খুলে আনা সম্ভব হয় না। এতে করে গত কয়েক মাসে লাখ লাখ টাকার জাল হারিয়ে নিঃস্ব হয়ে পড়েছেন শত শত জেলে।

তবে ক্ষতিগ্রস্ত হলেও প্রভাবশালীদের লাঠিয়াল বাহিনীর ভয়ে মুখ খুলতে পারছেন না তারা। জেলেদের অভিযোগ, প্রশাসন মাঝে-মধ্যে লোক দেখানো অভিযান পরিচালনা করলেও এই প্রভাবশালী ব্যক্তিরা থাকেন ধরাছোঁয়ার বাইরে। সংশ্লিষ্ট প্রশাসনকে হাত করেই এমন কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন তারা।

অবৈধ জালের বিষয়ে প্রশাসন কঠোর অবস্থানে জানিয়েছে সত্যতা যাচাই করে ব্যবস্থা নেয়ার কথা জানান দৌলতখান উপজেলার মৎস্য কর্মকর্তা মাহফুজুর রহমান,এবং বলেন অভিযান অব্যাহত থাকবে।

তিনি বলেন, গত ৯ ফেব্রুয়ারী ভোলা মেঘনা নদীর বিভিন্ন পয়েন্টে ভোলা জেলা মৎস্য কর্মকর্তার নেতৃত্বে কোস্ট গার্ড ও পুলিশ বিশেষ অভিযান পরিচালনা করা হয়। অভিযানে ৩ টি পাইজাল,৫০ টি মশারীজাল জব্দ করা হয়। নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট উপস্থিতে ইতোমধ্যে এসব জাল ও খুঁটি পুড়িয়ে ধ্বংস করা হয়েছে।

অবৈধ জাল উদ্ধার করতে না পারলে আগামীতে জেলায় মাছের আকাল দেখা দিতে পারে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করছেন সংশ্লিষ্টরা।

এ জাতীয় আরও খবর

ফেসবুকে আমরা