1. admin@upokulbarta.news : admin :
রবিবার, ২১ এপ্রিল ২০২৪, ০৮:০৫ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
মেঘনা নদীতে কর্ণফুলী-৩ লঞ্চে আগুন, আতঙ্কিত যাত্রীরা ভোলায় পুকুরে ডুবে ভাই-বোনের মৃত্যু ফকিরহাটের শান্তি ও সমৃদ্ধি কামনা করে স্বপন দাশের প্রচার শুরু চরফ্যাশনে ভিকটিমকে নির্যাতনের অভিযোগ উঠেছে ম্যাজিস্ট্রেট মোস্তাফিজুর রহমান এর বিরুদ্ধে আদালতের আদেশ মানতে গড়িমসি করছেন খুলনা বিভাগীয় পরিবার পরিকল্পনা পরিচালক রবিউল আলম বাইউস্টে নবীন শিক্ষার্থীদের ওরিয়েন্টেশন প্রোগ্রাম অনুষ্ঠিত Sustainability with Profitability is Possible-Rezaul Karim Chowdhury লালমোহনে পূর্ব শত্রুতার জের ধরে মারপিট আহত ১ ২০২৪-২৫ বাজেটে সব ধরনের তামাকপণ্যের কর ও মূল্য বৃদ্ধির দাবিতে বিড়ি শ্রমিকদের মানববন্ধন মোহনপুরে প্রাণিসম্পদ প্রদর্শনী মেলার উদ্বোধন

ইউপি সদস্য মোল্লা মারুফের বিরুদ্ধে চেয়ারম্যানের সীল স্বাক্ষর জালিয়াতির অভিযোগ

যুগ্ম সম্পাদক
  • আপডেট সময় : শুক্রবার, ২৫ আগস্ট, ২০২৩
  • ৭৪ বার পঠিত

২৫ আগস্ট ২০২৩.

পটুয়াখালী: পটুয়াখালীর মির্জাগঞ্জের মাধবখালী ইউনিয়ন পরিষদের ৭নং ওয়ার্ডের সদস্য মোল্লা মারুফ হোসেনের বিরুদ্ধে একই ইউপির চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান লাভলুর সীল ও স্বাক্ষর জাল জালিয়াতির অভিযোগ উঠেছে।

এছাড়াও রাষ্ট্রীয় নানান কর্মসূচীসহ জাতীয় শোক দিবসের কর্মসূচি পালন না করে, উল্টো শোক দিবস নিয়ে কটাক্ষ করার অভিযোগ উঠেছে ইউপি সদস্য মোল্লা মারুফ হোসেন ও বিএনপি পন্থীসহ ৬ ইউপি সদস্যদের বিরুদ্ধে।

এদিকে এ ঘটনা জানাজানি হওয়ার পর চেয়ারম্যানের আইনি পদক্ষেপ গ্রহণের আগেই, ধামাচাপা দিতে বিএনপি সমর্থিত আট ইউপি সদস্যরা মিলে চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে মিথ্যা ও বানোয়াট কুৎসা রটিয়ে ও সংবাদ সম্মেলন করে অপপ্রচার শুরু করেছে বলেও দাবী করেন চেয়ারম্যান।

শুক্রবার (২৫ আগস্ট) সকালে কাঠালতলী বাজারে ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে মিথ্যা ও বানোয়াট অভিযোগ ও অপপ্রচারের বিরুদ্ধে কতিপয় বিএনপি নেতা ও ইউপি সদস্যদের বিচার ও ঘটনার সুষ্ঠু তদন্তের দাবীতে বিক্ষোভ সমাবেশ ও মানববন্ধন করেছে স্থানীয় সাধারণ মানুষ।

এতে বক্তব্য রাখেন ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হালিম মোল্লা, ইউপি সদস্য আমিন, জাহাঙ্গীর, সংরক্ষিত নারী সদস্য শিউলিসহ ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের নেতৃবৃন্দ।

এছাড়াও একই ঘটনায় ও আনিত অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে আজ শুক্রবার (২৫ আগস্ট) সকালে ইউনিয়ন পরিষদে সংবাদ সম্মেলন করে চেয়ারম্যান ও মাধবখালী ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি মিজানুর রহমান লাভলু।

এসময় মোল্লা মারুফ হোসেন নামে এক ইউপি সদস্য ও বিএনপি নেতার বিরুদ্ধে নিজের সীল ও স্বাক্ষর জাল করার অভিযোগ করেন চেয়ারম্যান। তিনি বলেন, ব্ল্যাঙ্ক পরিচয়পত্র নিয়ে তার স্বাক্ষর জাল ও জাল করে দীর্ঘদিন প্রতারণা করে আসছে। বিষয় গত ১৫/২০ দিন আগে জানতে পারি। তারপরই তারা আমার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র ও অপ্রচার শুরু করেছে ইউপি সদস্য মোল্লা মারুফসহ ইউপি সদস্য মো. মনির হোসেন, মো. উজ্জ্বল মৃধা, মো. মহসিন, মো. তসলিম, সিরাজুল ইসলাম ও মোসা. আতিয়া আক্তার।

সংবাদ সম্মেলনে মিজানুর রহমান লাভলু দাবী করেন, আমার বিরুদ্ধে যেসব অভিযোগ উত্থাপন করা হয়েছে তা কতটুকু সত্য ও সঠিক সেটা হচ্ছে মূল বিষয়। এসব অভিযোগ সম্পূর্ণ মিথ্যা ও ভিত্তিহীন উল্লেখ করে তিনি বলেন, আটজন মেম্বারের ছয়জনই বিএনপির রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত। তারা ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হয়েছে।

তিনি বলেন, বিএনপি নেতা ইউপি সদস্য মারুফ আমার সীল ও স্বাক্ষর জাল করে প্রতারণা করে আসছে। এমন সংবাদ পেয়ে আমি আইন পদক্ষেপ নিতে যাবো, তখনই তিনি কতিপয় কুচক্রী মহলের সঙ্গে জোট বেধে আমরা বিরুদ্ধে মিথ্যা ও বানোয়াট কুৎসা রটনাচ্ছে। আমি সুষ্ঠু তদন্তের জকজধ্যমে উক্ত অভিযোগের সমাধান চাই এবং আমরা সম্মানহানীর বিচার চাই।

আরও বলেন, কাঠালতলীতে এই মারুফ বিএনপির নেতা। তারা পূর্বে আওয়ামিলীগ নিধনে কাজ করছে। এখন আমি শেখ হাসিনার দেওয়া নৌকা প্রতীক নিয়ে নির্বাচিত হয়েছি। নিয়ম মাফিক সুষ্ঠু ভাবে ইউনিয়ন পরিষদ চালিয়ে আসছি। রাস্তা ঘাট নির্মাণ করেছি। ইউপি সদস্যদের চাহিদা মোতাবেক প্রকল্প ও তাদের মাধ্যমে বাস্তবতায়ন করা হয়েছে।

সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে চেয়ান মিজানুর রহমান লাভলু বলেন, আমি ঢাকায় ছিলাম, তাই আইনী পদক্ষেপ গ্রহণ করতে কিছুটা বিলম্ব হয়েছে। আজকেই আমি ইউপি সচিবকে সঙ্গে নিয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মহোদয়ের সঙ্গে আলাপ করে, পরবর্তী করণীয় নির্ধারণ করবো।

এবিষয়ে মির্জাগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার সাইয়েমা হাসান বলেন, মাধবখালী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানকে নিয়ে ইউপি সদস্যরা একটি অভিযোগ জমা দিয়েছেন। আমরা অভিযোগ পেয়েছি। আইন অনুযায়ী তদন্ত করা হবে। তবে, চেয়ারম্যানের সীল ও স্বাক্ষর জাল জালিয়াতির কোন অভিযোগ কেউ করেনি। কেউ অভিযোগ করলে, সেটাও তদন্ত করে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

স্থানীয়দের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, বিগত দিনে নানা সমস্যা ও অনিয়মসহ দূর্নীতিতে জর্জরিত ছিলো এই ইউনিয়ন পরিষদ। এক সময় পুরো ইউনিয়ন জুড়ে জনসাধারণের জনদুর্ভাগের শেষ ছিল না। রাস্তাঘাট ছিল খানাখন্দে ভরা এবং পুল-কালভার্ট ছিল ভাঙ্গাচুরা, যা দিয়ে চলাচলে জনসাধারণের চরম দুর্ভোগ পোহাতে হতো। কিন্তু সেই চিত্র এখন আর চোখে পড়ে না। গ্রামীণ জনপদে উন্নত সেবার এক অনন্য দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন বর্তমান চেয়ারম্যান কাজী মিজানুর রহমান লাভলু। খুব অল্পসময়ের মধ্যে অনেকগুলো দৃশ্যমান উন্নয়ন করে ইউনিয়নবাসীর প্রশংসায় ভাসছেন তিনি।

এ জাতীয় আরও খবর

ফেসবুকে আমরা