1. admin@upokulbarta.news : admin :
  2. bangladesh@upokulbarta.news : যুগ্ম সম্পাদক : যুগ্ম সম্পাদক
  3. bholasadar@upokulbarta.news : বার্তা সম্পাদক : বার্তা সম্পাদক
শনিবার, ২০ জুলাই ২০২৪, ০১:২৫ অপরাহ্ন

ভোলার দৌলতখানে পরকীয়া প্রেমে টানে ২সন্তানের জননীকে নিয়ে লাপাত্তা মনির

সহকারী প্রকাশকঃ
  • আপডেট সময় : শুক্রবার, ৫ মে, ২০২৩
  • ১০৮ বার পঠিত

নিজস্ব প্রতিবেদক:
পরকীয়া প্রেমে জড়িয়ে ভোলার দৌলতখানে দুই সন্তানের জননীকে নিয়ে বহুগামিতা মনির উধাও হওয়ার ঘটনা ঘটেছে। চাঞ্চল্যকর ঘটনাটি ঘটেছে দৌলতখান উপজেলার সৈয়দপুর ইউনিয়নে ৯নং ওয়ার্ডে। এমন জঘন্য ঘটনায় এলাকাজুড়ে ছড়িয়ে পড়েছে চাঞ্চল্য।
দুই সন্তানের জননী আরজুর স্বামী নুরে আলম বাদী হয়ে দৌলতখান থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন। তার স্ত্রী এক সন্তান রেখে আরেক জন সন্তান, সোনা ও নগদ অর্থ সাথে নিয়ে পালিয়ে গেছে বলে লিখিত অভিযোগে উল্লেখ করেছেন।
অভিযুক্ত মনির উপজেলার সৈয়দপুর ইউনিয়নের মৃত ইয়াকুব আলীর ছেলে।

জানা গেছে, উপজেলার সৈয়দপুর ইউনিয়নের এসহাক মোড়ের ব্যবসায়ী ও সাবেক চার স্ত্রীর স্বামী মো: মনির একই এলাকার আলী আহমদ বেপারীর মেয়ে আরজুর সাথে পরকীয়া প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠে। পরকীয়া প্রেমকে পরিপূর্ণতা দিতে মনির আরজুকে নিয়ে পালিয়ে যায়।

স্থানীয়রা জানান, মনির এপর্যন্ত পাঁচটি বিয়ে করেন যা তার নেশা হিসেবে পরিনত হয়েছে। মনির বিভিন্ন উপায়ে বিবাহিত মহিলাদের সাথে সখ্যতা তৈরি করে পরকীয়ায় আসক্ত হয়। তেমনি আরজুর দুটি সন্তান থাকা সত্ত্বেও দীর্ঘদিন ধরে মনিরের সাথে পরকীয়া প্রেম রঙ্গ লিলায় মেতেছে।

চতুর্থ স্ত্রী ইয়ানুর বেগম বাদী হয়ে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা করেন। তিনি জানান, আমার স্বামী প্রবাসে থাকে। সেই সুযোগ কাজে লাগিয়ে সে আমাকে কৌশলগত ভাবে জোরপূর্বক বিয়ে করে এবং বিভিন্ন সময় ব্লাক মেইল করে টাকা হাতিয়ে নেয়। এছাড়াও আমাকে ধর্ষন করে।

নুরে আলম জানান, আরজুকে আমি ১০/১২ বছর পূর্বে বিয়ে করি। বিয়ের পর দুই ছেলে সন্তান হয়। আমি সাগরে মাছ ধরার জন্য গেলে মনির আমার স্ত্রীকে ফুসলিয়ে পরকীয়া প্রেমে আসক্ত করে। প্রথমে বিষয়টি আমি জানতাম না। প্রায়ই ফোনে কথা বলতে দেখতাম। আমি জিজ্ঞেস করলে সে আমাকে অশ্লীল ভাষায় কথা বলতো।
তার কাছ থেকে বিভিন্ন সময় ৪টি সিম উদ্ধার করি এবং সেইসব বিষয় তার পরিবারকে অবগত করি। কিন্তু তারা আমাকে বলত কথা বলিলে কি আসে যায়। এতকিছুর পরও আমি ধৈর্য্যসহকারে তার সাথে ঘর সংসার করি। গত ৮ এপ্রিল আমি সাগরে গেলে আমার স্ত্রী পরকীয়া প্রেমে আসক্ত হয়ে ৪ বছরের বড় সন্তানকে সাথে নিয়ে মনিরের সাথে পালিয়ে যায়। সে আমার ঘরে থাকা স্বর্নালঙ্কার, এক সন্তান ও নগদ দুই লক্ষ টাকার সম্পদ নিয়ে যায়।

এবিষয় জানতে মনিরকে ফোন দিয়ে সাংবাদিক পরিচয় দিলে কথা না বলে ফোন কেটে দেয়। একাধিকবার চেষ্টা করেও তার বক্তব্য নেওয়া সম্ভব হয়নি।

এলাকার লোকজন বলেন, মনিরের বিরুদ্ধে যেখানেই অভিযোগ দেওয়া হোক না কেনো তার কিছু করতে পারবে না। সব দপ্তরকে ম্যানেজ করা শেষ। এছাড়াও মনির মাদক ব্যবসার সাথে জড়িত।

দৌলতখান থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) জাকির হোসেন জানান, অভিযোগ পেয়েছি। তদন্ত সাপেক্ষে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এ জাতীয় আরও খবর

ফেসবুকে আমরা