1. admin@upokulbarta.news : admin :
শনিবার, ০২ মার্চ ২০২৪, ০৯:৪০ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
পশ্চিম চর উমেদ ইউপি নির্বাচন চেয়ারম্যান নির্বাচিত হলে ইভটিজিং বন্ধ করবেন সালেম হাওলাদার ভোলায় সাংবাদিক মহিউদ্দিনের উপর হামলায় গণমাধ্যমে নিন্দা-প্রতিবাদের ঝড় যৌতুকের দাবিতে পুত্রবধূকে মারধরের অভিযোগ শশুর শাশুড়ির বিরুদ্ধে মাছ শিকারে ২ মাসের নিষেধাজ্ঞা শুরু মেঘনা ও তেঁতুলিয়া নদীতে গুরু -আঃ সামাদ ভোলার লালমোহন পশ্চিম চর উমেদ ইউপি নির্বাচন লালমোহন পশ্চিম চর উমেদ ইউপি নির্বাচন শিক্ষার মানোন্নয়ন করতে চান চেয়ারম্যান প্রার্থী অধ্যক্ষ সেলিম নারীর গুণ – আঃ সামাদ দৌলতখানে যুব রেড ক্রিসেন্টে দলনেতা মাশরাফি উপ-নেতা ইমতিয়াজ ও রহিমা মোংলায় ৫ শতাধিক চক্ষু রোগীকে বিনামূল্যে চিকিৎসা সেবা প্রদান

বোরহানউদ্দিনে তরমুজের বাম্পার ফলন

ব্যবস্থাপনা সম্পাদক
  • আপডেট সময় : বুধবার, ২২ মার্চ, ২০২৩
  • ১৬২ বার পঠিত

জেএম.মমিন, বোরহানউদ্দিন (ভোলা):

ভোলার বোরহানউদ্দিনে তরমুজ চাষে বাম্পার ফলন হয়েছে। ইতোমধ্যে খেত থেকে তরমুজ তুলে বিক্রি শুরু করেছেন চাষিরা।
স্থানীয় বাজারের পাশাপাশি এসব তরমুজ বরিশাল, ঢাকা, মুন্সিগঞ্জ, মাদারীপুর, চট্টগ্রাম ও খুলনা, যশোর, সাতক্ষীরাসহ দেশের বিভিন্ন প্রান্তে যাচ্ছে। বাজারে ভালো দাম পাওয়ায় খুশি চাষিরা। তবে গত তিন চারদিনের বৃষ্টিতে চাষিদের কপালে চিন্তার ভাজ দেখা যায়।

চাষিরা জানান, গত বছরের ন্যায় এবছরও অনুকূল পরিবেশ, রোগব্যাধি ও পোকামাকড়ের আক্রমণ কম থাকায় ফলন ভালো হয়েছে ৷ তাই চাষাবাদও বেড়েছে কয়েক গুন ৷

উপজেলা কৃষি অফিস সূত্র জানায়, এ বছর তরমুজ চাষের লক্ষমাত্রা ধরা হয়েছিলো ১৭০ হেক্টর ৷ অর্জিত ছাড়িয়ে হয়েছে ৭০০ হেক্টর ৷ যা লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে ৫৩০ হেক্টর বেশি ৷ এর থেকে ৩৫ হাজার মেক্ট্রিকটন ফলন আসবে বলে আশা করছেন তারা ৷

উপজেলার সাচড়া ইউনিয়নের দরুন গ্রামের তরুণ কৃষি উদ্যোক্তা ও চাষি সিহাব মৃধা জানান,আমি এবছর ২০ একর জমিতে তরমুজ চাষ করেছি ৷ এতে প্রায় ১৬ লাখ টাকা খরচ হয়েছে ৷ ফলন ভালো হয়েছে ৷ প্রথম ধাপে ৩ লক্ষ টাকার তরমুজ বিক্রি করেছি ৷ ২য় ধাপে বিক্রির কথাবার্তা চলছে ৷

চাষি মাইনুদ্দিন জানান, চলতি বছর তার ১৫ একর জমিতে তরমুজ আবাদ করতে খরচ হয়েছে ১১ লাখ টাকা। ইতিমধ্যে দুই ধাপে ৯ লাখ টাকা বিক্রি করেছেন ৷

গঙ্গাপুর ইউনিয়নের ইউছুফ হোসেন, ফিরোজ সিকদার, রিয়াজ মীর জানান, এবছর ফলন ভালো হয়েছে, দাম ও এখন পর্যন্ত ভালো রয়েছে ৷ তবে গত তিন চারদিন বৃষ্টি থাকায় তরমুজ পচে যাওয়া, পরিবহন সমস্যা ও দাম কমে যাওয়ার আশস্কায় একটু চিন্তিত। এই সময়ে শিলা বৃষ্টি ও ভারি বর্ষণ হলে ফসলের ক্ষতি ও আমাদের লোকসানের মুখে পরতে হবে।

উপজেলা কৃষি অফিসার এইচ এম শামীম জানান,অনুকূল পরিবেশ, ভালো বাজার ব্যবস্থাপনা আর বৃষ্টি না হওয়ায় এ বছর তরমুজের ভালো ফলন হয়েছে। দামও রয়েছে সন্তোষজনক। গত বছর চাষিরা ফলন ও বাজার দর ভালো পাওয়ায় এবছর চাষাবাদের লক্ষমাত্রা তিন গুনের বেশি ছাড়িয়ে ৷ আগামী বছরগুলোতে কৃষকরা আরো বেশি জমিতে তরমুজ চাষ করবে বলে তিনি আশা করেন।

 

এ জাতীয় আরও খবর

ফেসবুকে আমরা