1. admin@upokulbarta.news : admin :
শুক্রবার, ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১০:২০ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
কেরানীগঞ্জে আইন-শৃঙ্খলা সভা অনুষ্ঠিত শেখ হাসিনার কল্যাণে তলাবিহীন ঝুড়ির দেশ থেকে আজকে সম্ভাবনাময় বাংলাদেশ হয়েছে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী কপ ২৭ আলোচ্যসূচিতে ক্ষয়-ক্ষতি প্রসঙ্গ অন্তর্ভুক্ত করার জন্য বাংলাদেশকে জোর অবস্থান নেওয়ার দাবি নাগরিক সমাজের Civil Societies demanded strong government position to include Loss & Damage in CoP 27 agendas সিদ্ধিরগঞ্জে মাদক ও কিশোর অপরাধকে না বললো ৪০০ শিক্ষার্থী কেরানীগঞ্জে বাস্তবায়ন হচ্ছে বিষমুক্ত সবজি উৎপাদনের কার্যক্রম মোংলায় স্কুল ছাত্রীকে ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগ, থানায় মামলা ভোলা জেলা যুবলীগ ও অন্যান্য আওয়ামী সহযোগী সংগঠনের আয়োজনে প্রধানমন্ত্রীর জন্মদিন পালিত শেখ হাসিনা বাঁচলে বাংলাদেশ বাঁচবে, উন্নয়ন অব্যাহত থাকবে-এমপি শাওন মোংলা বন্দর কর্তৃপক্ষের আয়োজনে প্রধানমন্ত্রীর জন্মদিন উদযাপন

কেরানীগঞ্জে তিন মাস বার দিন পর কবর থেকে লাশ উত্তোলন

সহকারী সম্পাদক
  • আপডেট সময় : রবিবার, ১৮ সেপ্টেম্বর, ২০২২
  • ১৫ বার পঠিত

সোলায়মান সুমন, নিজস্ব প্রতিনিধি:

মৃত্যুর ৩ মাস ১২ দিন পর কবর থেকে সানজু (৩২) নামে এক ব্যক্তির লাশ উত্তোলন করেছে পুলিশ। রোববার (১৮ সেপ্টেম্বর) বেলা ১২টায় দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ থানার হাসনাবাদ কবরস্থান থেকে আদালতের নির্দেশে তার লাশ তোলা হয়।

এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট কে এম রফিকুল ইসলাম ও একজন মেডিকেল অফিসারের উপস্থিতিতে লাশ তুলে তা ময়নাতদন্তের জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে। পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, গত ৬ জুন সন্ধ্যায় বাসা থেকে বের হয়ে রাত আনুমানিক ১টায় টিকাটুলী পেট্রোল পাম্প হইতে সায়েদাবাদ যাওয়ার সময় ওয়ারী থানাধীন টিকাটুলি (র্যাব-৩) কার্যালয়ের পূর্ব পাশে ফ্লাইওভারের নিচে তার বাইকের নিয়ন্ত্রন হারিয়ে পাশের ফুটপাতের বিটের সাথে আঘাত প্রাপ্ত হয়ে মাথায় গুরুতর জখম হয়, যার ফলে সানজুর নাক রক্তক্ষরনের ফলে মৃত্যু হয়। তবে মামলার বাদী ও নিহতের বাবার শাহজাহান বাদশা জানান, গত ৬ জুন সন্ধ্যা সংবাদ পাই যে, আমার সন্তান সানজু ওয়ারী পেট্রোল পাম্প-সায়েদাবাদ যাওয়া পথে সড়ক দুর্ঘটনায় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি। পরে তাৎক্ষণিক পরিবারের সদস্যদের নিয়ে ঢাকা হাসপাতালের মর্গে সন্তানকে সনাক্ত করি।

বিবাদীর যোগসাজশে হাসপাতালে ময়না তদন্ত নির্ণয় ছাড়াই কবরে দাফন দেন। তিনি আরও জানান যে, প্রথমে তিনি ভাই-ভাতিজাদের কথা শুনে এটিকে বাইক দূর্ঘটনায় মৃত্যু হয়েছে ভেবেই নিজেরা ছেলেকে কবরস্থ করেন। পরে তাদের কথাবার্তায় ও মৃত্যুর আলামতে দেখে তার বুঝতে বাকি থাকেনা যে এটি পরিকল্পিত হত্যাকাণ্ড। সম্পত্তির অবৈধভাবে গ্রাস ও ভোগ দখল করার জন্য পূর্ব পরিকল্পিতভাবে আমার এক মাত্র ছেলে সন্তান কে হত্যা করা হয়েছে।

আমাকে ওয়ারিশ শূন্য করার জন্য ওয়াসিম, টুটুল, শামসুজ্জামান, মিজানুর রহমান, হামিদা বেগম ও রিয়াদ পূর্ব পরিকল্পিতভাবে আমার সন্তান কে হত্যা করেছে। পরে ওয়ারী থানা মামলা না নিলে আদালতে মামলা করেন বলে জানান তিনি। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা পুলিশ পরিদর্শক (সিআইডি ঢাকা মেট্রোপলিটন পূর্ব) বেলায়ত হোসেন জানান, গত ৩০ আগস্ট আদালতে ছেলের জন্য শাহজাহান বাদশা দায়ীদের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন। পরে আদালত মামলাটি সিএমএম আদালতে রুজু করে কবর থেকে লাশ তোলার নির্দেশ দেন। নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট কেএম রফিকুল ইসলাম বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, মৃত্যুর সময় থানায় কোন কিছুই জানানো হয়নি। হঠাৎ নিহতের ছেলের অভিযোগের প্রেক্ষিতে ৩ মাস ১২ দিন পর আদালতের নির্দেশে লাশ উত্তোলন করে মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে।

এ জাতীয় আরও খবর

ফেসবুকে আমরা