1. admin@upokulbarta.news : admin :
শুক্রবার, ০২ ডিসেম্বর ২০২২, ০৮:৩৯ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
মনপুরায় গণমাধ্যমকর্মিদের সাথে যুবদলের নবগঠিত কমিটির মত বিনিময় উত্তর দিঘলদী ইউনিয়ন বিএনপির নতুন কমিটি ঘোষণা করায় আসিফ আলতাফ কে শুভেচ্ছা জানিয়ে আনন্দ মিছিল ভোলা সদর উপজেলা বিএনপির সভাপতি আসিফ আলতাফ সহ ৩৪ জনের জামিনের সময়সীমা বৃদ্ধি এমপি শাওন’র জন্মদিন আজ ভেদুরিয়া চরকালী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ফান্ডের টাকা আত্মসাতের অভিযোগ প্রধান শিক্ষক সিরাজুল ইসলাম এর বিরুদ্ধে ভেদুরিয়ায় নবগঠিত ইউনিয়ন কমিটির আনন্দ মিছিলে দুষ্কৃতিকারীদের অতর্কিত হামলার অভিযোগ লালমোহনে স্বামী কর্তৃক স্ত্রী নির্যাতনের অভিযোগ আরডিএ’র নির্বাহী প্রকৌশলীর বিরুদ্ধে ২শ ৬ কোটি টাকার কাজে অনিয়ম দুর্নীতির অভিযোগ ভবিষ্যৎ প্রজন্মকে সুস্থ স্বাস্থ্যের জনশক্তি হিসেবে গড়ে তুলতে হবে সিদ্ধিরগঞ্জ,চৌধুরী বাড়ী বাইতুল মা’মুর জামে মসজিদের পুনঃনির্মান ভিত্তি প্রস্তর উদ্বোধন

লালমোহনে জনশুমারী ও গৃহগণনার কাজে নিয়োগে ব্যাপক অনিয়ম ॥ স্কুল ও মাদ্রারাসা শিক্ষকদের নিয়োগ

যুগ্ম সম্পাদকঃ
  • আপডেট সময় : রবিবার, ১২ জুন, ২০২২
  • ৮৪ বার পঠিত

বিশেষ প্রতিনিধিঃ

ভোলার লালমোহনে জনশুমারী ও গৃহগণনার কাজে সুপারভাইজার এবং গণনাকারী নিয়োগে ব্যাপক অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে। সরকারিভাবে বেকার যুবক-যুবতী ও ছাত্র-ছাত্রীদের এ কাজে নিয়োগ দেয়ার কথা থাকলেও লালমোহনে মানা হয়নি সে নির্দেশনা। পরিসংখ্যান অফিসের উপজেলা সেন্সাস কো-অর্ডিনেটর আরিফুর রহমান খন্দকারের যোগসাজসে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক, মাদ্রাসা-স্কুলের শিক্ষক, এমনকি মাদ্রাসার প্রধানদেরকেও একাজে নিয়োগ দেয়া হয়েছে। এতে প্রকৃত বেকার যুবক-যুবতীও ছাত্র-ছাত্রীরা সুযোগ পাননি সুপারভাইজার এবং গণনাকারী হিসেবে কাজ করার। আরিফুর রহমান খন্দকারের স্বেচ্ছাচারিতায় সাবেক পরিসংখ্যান কর্মকর্তার নিয়োগ দিয়ে যাওয়া পারভীন আক্তার ও সালমা জাহান বুলুর নাম নতুন তালিকা থেকে বাদ দেওয়া হয়েছে বলেও অভিযোগ পাওয়া গেছে। জানা গেছে, লালমোহন পৌরসভাসহ উপজেলার ৯টি ইউনিয়নে সারাদেশের ন্যায় ১৫-২২ জুন জনশুমারী ও গৃহগণনার কাজ শুরু হবে। এ উপজেলায় ১২৩ জন সুপারভাইজার, ৬৬৭ জন গণনাকারী নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। এর জন্য ২০২০ সালের ১ জানুয়ারি লালমোহন উপজেলার নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে স্পস্ট লেখা আছে উপজেলায় স্থায়ীভাবে বসবাসকারী বেকার যুবক/যুব মহিলা এবং ছাত্র-ছাত্রীদের নিকট হতে দরখাস্ত আহবান করা হচ্ছে। এতে সুপারভাইজার পদের জন্য নুন্যতম স্নাতক বা সমমান পাস শিক্ষাগত যোগ্যতা নির্ধারণ করা আছে এবং গণনাকারীদের জন্য নূন্যতম এইচএসসি বা সমমান পাস হতে হবে বলা আছে। বয়স ২৩ থেকে ৪০ ও ১৮ থেকে ৩৫ বছরও নির্ধারণ করা আছে। কিন্তু খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, লালমোহনে এসবের কোন নিয়মনীতিই মানা হয়নি। লালমোহন আব্দুল মোতালেব দাখিল মাদরাসার সুপার ইব্রাহিম খলিল। তিনি ধলীগৌরনগর ইউনিয়নের সুপারভাইজার। অথচ তিনি কোন নিয়োগ পরীক্ষায়ই অংশগ্রহণ করেননি।

তার কাছে জানতে চাইলে তিনি কোন সঠিক জবাব দিতে পারেননি। তার মতো এরকম বহু মাদরাসা শিক্ষককে নেওয়া হয়েছে। এর মধ্যে কেবল ধলীগৌরনগর ইউনিয়নেই মমিন নেছা দাখিল মাদরাসার শিক্ষক মোস্তফা কামাল, মাও: নাজিম উদ্দিন, মো: গিয়াস উদ্দিন, মাহমুদিয়া বালিকা দাখিল মাদরাসার অফিস সহকারী আবুল কাশেম, করিমুন্নেছা আলিম মাদরাসার মাও. মফিজ, করিমগঞ্জ ইসলামিয়া মাদ্রাসার শিক্ষক ঝিল্লুর রহমান, কুন্ডের হাওলা মাদরাসার তালেব, চতলা মাদরাসার পারভেজ, চতলা হাশেমিয়া মাদরাসার আলামিন এর নামও আছে। এই ইউনিয়নের আরেক সুপারভাইজার তানিয়া আক্তারও পরীক্ষা দেননি। নেই স্নাতক পাসও। তবুও সুপারভাইজার হিসেবে প্রশিক্ষণ দেওয়া হচ্ছে।

সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকদেরও সম্পূর্ণ অনিয়মভাবে নিয়োগ দিয়েছেন পরিসংখ্যান অফিসের এই আরিফুর রহমান খন্দকার। তার স্বেচ্ছাচারিতায় পশ্চিম চরউমেদ-৩ নং সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সঞ্জিব দত্তকে আইটি সুপারভাইজার, লর্ডহার্ডিঞ্জ-২ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক মো. মামুনুর রশীদকে লর্ডহার্ডিঞ্জ ইউনিয়নের সুপারভাইজার, দক্ষিণ রায়চাঁদ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক সফিকুল ইসলাম, হাজী আব্দুর রশিদ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক মো. হুমায়ুন কবীর, মো. হাসনাইন আহমেদসহ এরকম বহু সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের নিয়োগ দেওয়া হয়েছে।

বেকার যুবক-যুবতী ও ছাত্র-ছাত্রীদের পর্যাপ্ত সুযোগ না দিয়ে সরকারি ও বেসরকারি শিক্ষকদের নেওয়ায় আরিফুর রহমান খন্দকারের বিরুদ্ধে চরম ক্ষোভ প্রকাশ করেন অনেকেই। আগের পরিসংখ্যান কর্মকর্তা মাইদুল ইসলাম জানান, তিনি ৯৬ জনকে পরীক্ষা নিয়ে নিয়োগ দিয়ে গেছেন। আগের অফিসারের নিয়োগ পাওয়া সালমা আক্তার বুলু বলেন, তিনি নিয়োগ পরীক্ষা দিয়ে যাচাই বাছাই শেষে তালিকাভুক্ত হয়েছিলেন। তাকে ফরাজগঞ্জ ইউনিয়নের ৫নং ওয়ার্ডে দায়ীত্বও দেওয়া হয়। কিন্তু এখন জানলেন তার নাম নেই।

একই অভিযোগ করলেন পারভীন আক্তারও। বর্তমান উপজেলা পরিসংখ্যান কর্মকর্তা আব্দুল হান্নান দুর্ঘটনায় পা ভেঙ্গে ঢাকার একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন। এই সুযোগে তারই অফিসের সেন্সাস কো-অর্ডিনেটর আরিফুর রহমান খন্দকার কোন পরীক্ষা ছাড়াই নিয়োগ বাণিজ্য শুরু করেন। যদিও মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসের একাডেমিক সুপারভাইজার মদন মোহন মন্ডল ও সহকারী প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার আকতার হোসেনসহ আরো ৩ কর্মকতাও জনশুমারী কার্যক্রম তদারকির সাথে জড়িত। তারা জানান, সকল নিয়োগ পরিসংখ্যান অফিস থেকে করে তাদের দেওয়া হয়েছে। আরিফুর রহমান খন্দকারের কাছে জানতে চাইলে তিনি বিভিন্ন রাজনৈতিক নেতাদের উপর দোষ চাপিয়ে তাদের সুপারীশে স্কুল, মাদরাসার শিক্ষকদের নিয়োগ দেওয়া হয়েছে বলে দাবী করেন। অথচ রাজনৈতিক নেতাদের সাথে আলাপকালে জানা গেছে, কেউ কোন সুপারীশ করেননি। যা করেছেন তা পরিসংখ্যান অফিসের আরিফই করেছেন।

এ জাতীয় আরও খবর

ফেসবুকে আমরা