1. admin@upokulbarta.news : admin :
  2. bangladesh@upokulbarta.news : যুগ্ম সম্পাদক : যুগ্ম সম্পাদক
  3. bholasadar@upokulbarta.news : বার্তা সম্পাদক : বার্তা সম্পাদক
বৃহস্পতিবার, ২৩ মে ২০২৪, ০৯:৪৭ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
ধলীগৌরনগর ইউপি নির্বাচনে মঞ্চ লুঙ্গী পড়া মানুষের জন্য বিশাল পথসভায় নেহাল পাটোয়ারী ভাইস চেয়ারম্যান থেকে চেয়ারম্যান হলেন ইউনুস, ভোলার ৩ উপজেলায় নির্বাচন সাতক্ষীরার ইছামতি নদীতে ভারতীয় নাগরিকের মরদেহ উদ্ধার! রাজশাহীতে পুষ্টি বিষয়ক মাল্টি সেক্টরাল সমন্বিত কর্মশালা অনুষ্ঠিত রামপালে মেধাবী অন্বেষণ কুইজ প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত রামপালে গলায় ফাঁস দিয়ে যুবক যুবতীর আত্মহত্যা ধলীগৌরনগর ইউপি নির্বাচন- সুখেদুঃখে মানুষের পাশে থাকবেন সংরক্ষীত সদস্য প্রার্থী নাসিমা লালমোহন উপজেলা নির্বাচন২৪ নির্বাচিত হলে বদরপুরে সবচেয়ে বেশি উন্নয়ন করবো-প্রার্থী আকতার হোসেন বোরহানউদ্দিনে উপজেলা চেয়ারম্যান ‘‘জাফর উল্লাহ’, ভাইস চেয়ারম্যান ‘হীরা’’ উপজেলা নির্বাচনে নির্বাচিত হলে বদরপুরে সবচেয়ে বেশি উন্নয়ন করবো-প্রার্থী আকতার হোসেন

অবিনব কায়দায় জমি দখল; ওসির সামনেই হিন্দু দুই গ্রুপের ধস্তাধস্তি, তৃতীয় পক্ষের নামে মামলা।

সহকারী সম্পাদকঃ
  • আপডেট সময় : বৃহস্পতিবার, ১৯ মে, ২০২২
  • ১৫০ বার পঠিত
নিজস্ব প্রতিবেদক পটুয়াখালীঃ
পটুয়াখালীর দুমকিতে জায়গা ও দোকানের দখল নিয়ে দুমকি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার (ওসি) সামনে হিন্দুদের ধস্তাধস্তি ও জাবরদস্তির ঘটনায় জমির ক্রেতা তৃতীয় পক্ষের নামে মামলা দায়ের করা হয়েছে বলে জানা গেছে। বৃহস্পতিবার (১৯ মে) দুমকি থানায় জমির বৈধ ক্রেতা তৃতীয় পক্ষ জসীম উদ্দিন বাদলসহ ১২ জনের নামে মামলা দায়ের করে প্রথম পক্ষ ত্রিনাথ চন্দ্র শীল।
স্থানীয় ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়,পটুয়াখালী দুমকি উপজেলায় হল পট্টি এলাকায় বাদল মৃধার ক্রয় সূত্রে মালিনা প্রাপ্ত দোকান ঘরের প্রায় ১০টি তালা ভেঙ্গে দখল করে স্থানীয় সনাতন ধর্মাবলম্বীর প্রথম পক্ষ অনীল চন্দ্র ও বিরেন চন্দ্র শীলের গংরা। গত শুক্রবার (১৩ মে) রাতের আঁধারে দোকান ঘরের তালা ভেঙ্গে প্রবেশ করে অভিনব কায়দায় বসবাস শুরু করে প্রতিপক্ষ অনিল চন্দ্র শীলের ছেলে তৃনাত চন্দ্র শিল ও লিটন চন্দ্র শিল এবং বিরেন চন্দ্র শীলের ছেলে গৌতম চন্দ্র শিল, বিপ্লব চন্দ্র শিল, রিপন চন্দ্র শিল ও বিশ্ব জিত শিল।
এ ব্যাপারে বাদল মৃধা পটুয়াখালী পুলিশ সুপার বরাবর লিখিত অভিযোগ করেন। পুলিশ সুপার, দুমকি থানা অফিসার ইনচার্জ আবদুস সালামকে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশ দেন। সাতদিন দিন অতিবাহিত হয়ে গেলেও ওসি সালাম কোন ধরনের ব্যবস্থা নেয়নি। ওসির দায়িত্ব অবহেলা এবং গড়ি মসির কারণে এই ঘটনা এপর্যন্ত পৌঁছে বলেও দাবি করেন স্থানীয়রা। তবে ওসির দাবি, সে উভয় পক্ষকে বার বার থানায় ডেকেছেন দ্বিতীয় ও তৃতীয় পক্ষ আসলেও প্রথম পক্ষ তার ডাকে সারা না দিয়ে টিনের দোকানের মধ্যে ঘরের নারী, বৃদ্ধ ও কিশোরীদের নিয়ে উদ্দেশ্য প্রনোদিত ভাবে অবস্থান করে শান্তি শৃঙ্খলা ভঙ্গ করেছেন। এদিকে ঘটনাকে কেন্দ্র করে এলাকায় গত কাল বুধবার (১৮ মে) দিবাগত রাতের সন্ধ্যায় দুমকি থানার ওসি আব্দুস সালাম ও তার সঙ্গীয় ফোর্সের সামনে সনাতন ধর্মাবলম্বী দুই গ্রুপের মধ্যে উত্তেজনা সৃষ্টি হয়ে একপর্যায়ে ধস্তাধস্তি হয়। পরে পুলিশ লাঠি চার্জ করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। পরে এই ঘটনার দখলদার সনাতন ধর্মাবলম্বীর একপক্ষ জমির ক্রেতা তৃতীয় পক্ষের নামে থানায় মামলা দায়ের করে। ঘটনার সূত্রপাত; ২০১৭ সালের ২৭ আগস্ট ১০২০ নং দলিল মূলে পটুয়াখালী জেলার দুমকি উপজেলার ২৫ নং জেএল এর ১২ নং খতিয়ানের ১২৫ নং দাগে ১ দশমিক ৮০ শতাংশ জমি ক্রয় করেন একই এলাকার কেতাব আলী আকনের ছেলে জসিম উদ্দিন বাদল জমির ক্রয়ের পরেই সরকারি বিধি মোতাবেক খাজনা পরিশোধ করে জসিম উদ্দিন বাদল ভোগ দখল করে আসছিলো।
এর আগে ২০১৮ সালে সনাতন ধর্মাবলম্বী প্রথম পক্ষ অনীল চন্দ্র ও বিরেন চন্দ্র শীলের গং বিজ্ঞ আদালতে মামলা দায়ের করেন। কিন্তু মামলা চলমান অবস্থায় তারা গভীর রাতে বন্ধ দোকানের তালা ভেঙে নারী ও কিশোদের নিয়ে প্রায় ৮/১০ জন বসবাস শুরু করে। স্থানীয় থানা ও ব্যক্তিবর্গের কথায় কান না দিয়ে ধর্মাবলম্বী প্রথম পক্ষ অনীল চন্দ্র ও বিরেন চন্দ্র শীলের গং দোকানের ভিতরেই বসবাস করে আসছিলো। গতকাল সন্ধ্যায় সনাতন ধর্মাবলম্বী ও জমির মূল অংশীদার দ্বিতীয় পক্ষ সুশীল চন্দ্র শীল ও কালীদাস চন্দ্র শীল বিরোধীয় সম্পত্তিতে প্রবেশ করতে চাইলে হট্টগোল বাঁধে। এসময় স্থানীয়রাও শান্তি ভঙ্গ ও উশৃংখল পরিবেশ সৃষ্টি করায় অনীল চন্দ্র ও বিরেন চন্দ্র শীলের গংদের বিরুদ্ধে চড়াও হয়। পরে পুলিশ লাঠি চার্জ করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। এবিষয়ে দুমকি থানার ওসি আব্দুস সালাম বলেন, আমরা এই বিরোধের সব কিছু জানি। আমরা তৃনাত বাবুকে একাধিক বার ডেকেছি, কিন্তু তারা আসেনি। তবে রাতের আঁধারে তালা ভেঙে দোকান দখল করছেন এই অভিযোগের সত্যতা স্বীকার করে বলেন, বিজ্ঞ আদালতে মামলা চলমান থাকায় আমরা হস্তক্ষেপ করতে পারছিনা। দোকান বা জায়গা কার থাকবে, এবিষয়ে আদালত সিদ্ধান্ত গ্রহণ করবেন। তবে এখানে যাতে শান্তি ভঙ্গ না হয় সে বিষয়ে আমরা ব্যবস্থা নিবো, ইতিপূর্বে যে ঘটনা ঘটেছে তাতে একপক্ষ মামলা দায়ের করেছেন, তদন্ত সাপেক্ষে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। ###
এ জাতীয় আরও খবর

ফেসবুকে আমরা