1. admin@upokulbarta.news : admin :
শুক্রবার, ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৭:৩৬ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
ডর্‌প ও ইউনাইটেড ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির ওয়াশ এবং জলবায়ু পরিবর্তন সংক্রান্ত সেমিনার অনুষ্ঠিত বন্দরে প্যালিয়েটিভ কেয়ার বিষয়ে সাংবাদিকদের সাথে নেটওয়ার্কিং সভা অনুষ্ঠিত পরীক্ষায় অসদুপায় অবলম্বন করায় এক শিক্ষকসহ ১৭ পরীক্ষার্থী বহিষ্কার ব্যাংকে জমি বন্ধক রেখে ঋন, বন্ধকী জমি বিক্রয়ে গ্রাহক ও ম্যানেজারের প্রতারনা চরফ্যাশন উপজেলা যুব রেড ক্রিসেন্ট কমিটি গঠন যৌন হয়রানি করে প্রধান শিক্ষক জেলে বরখাস্ত করেনি সভাপতি নেতা মুজিব -আঃ সামাদ ভোলায় নারী নেটওয়ার্কিং কমিটির সমন্বয় সভা অনুষ্ঠিত ফকিরহাটে মিনি ম্যারাথন দৌড় প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত ফকিরহাটে কৃষি ব্যাংকে গ্রাহক সেবা উন্নয়নে মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত

সীমাহীন দুর্ভোগে পটুয়াখালীর গলাচিপার বাংলার চরের মানুষ।।

মোঃ মিজানুর রহমান
  • আপডেট সময় : রবিবার, ৭ নভেম্বর, ২০২১
  • ২৪০ বার পঠিত

পটুয়াখালীর গলাচিপা থানায় অবস্থিত বিচ্ছিন্ন একটি ইউনিয়ন চরবিশ্বাস। ইউনিয়নটির বিচ্ছিন্ন আর একটি অংশের নাম বাংলার চর। থানা সদর হতে ৩০ কি:মি: দুরে চরটির অবস্থান। পুর্ব ও উত্তরে তেতুলিয়া নদী, দক্ষিণে চর মন্তাজ পশ্চিমে চর বিশ্বাস। চরটির সাথে থানা সদরের যেতে হলে দুইটি নদী পার হতে হয় যোগাযোগে সময় লাগে ৪ ঘন্টা। বিভিন্ন প্রাকৃতিক দূর্যোগ,দু:খ-দারিদ্র্য,ক্ষুধা ও স্বাস্থ্য ঝুঁকির ইউনিয়নয়ের সন্তান ডাকসুর সাবেক ভিপি নুরুল হক নুরু। ১৭০০ একর ভূমির চরটিতে বসবাস শুরু হয় ১৯৯৪ সালে।

বাউফল, দশমিনা, চরকাজল ও চর বিশ্বাস সহ বিভিন্ন চর হতে ভুমিহীন লোকজন বসতি স্থাপন করে এই চরে। ৩৫০ পরিবারের চরটিতে রয়েছে একটি মাত্র সরকারী প্রাইমারী স্কুল। ২০০৭ সালে বেসরকারী ভাবে শুরু হওয়া বিদ্যালয়টি থেকে গত বছর ২৫ জন ছাত্র প্রাথমিক সম্পন্ন করলেও চরটিতে উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয় না থাকায় অনেক ছাত্রই অকালে ঝড়ে পড়ে।

বিদ্যালয়টির প্রধান শিক্ষক আল আমিন জানান, এ বিদ্যালয়ের গন্ডি পেরিয়ে এ যাবৎ ২৫ জন এসএসসি, ১৩ জন এইএসসি এবং ২ জন ডিগ্রী পাশ করেন। মৎস্য আহরন করে এখানকার লোকজন জীবিকা নির্বাহ করে। ধান, তরমুজ, বাদাম এই চরের অর্থকারী ফসল। চরটিতে বেড়ীবাঁধ না থাকায় আমবস্যা ও পূর্ণিমার স্বাভাবিক জোয়াড়ে ফসলি জমি তলিয়ে যায়। দুই হাজার পাঁচশত লোকের বসবাস চরটিতে রয়েছে একটি মাত্র সাইক্লোন সেল্টার। দুই জন ধাত্রী দ্বারা চলে গর্ভ-প্রসবের মত ঝুঁকি পূর্ণ সেবা। নেই কোন কমিউনিটি ক্লিনিক বা স্বাস্থ্য সেবা কেন্দ্র।

সবচেয়ে বড় বিষয় হলো নদীর গর্ভে জেগে উঠা এই চরে ভূমিহীন পরিবারগুলোর বসতভিটার এখনো হয়নি কোন আইনি বন্দোবস্ত। দখলদারদের মামলায় মাথা গুজার ঠাঁইটুকু এখনও অনিশ্চয়তায়। পদ্মা সেতু, মেট্টোরেল, ফ্লাইওভার, এক্সপ্রেসওয়ে সহ অনেক মেঘা প্রকল্প চলমান যার কোন সুবিধাই ভোগ করতে পারবে না চরবাসী। মামলা নিরসনে স্থায়ী বসবাস, বেড়ীবাঁধ, কমিউনিটি ক্লিনিক এবং মাধ্যমিক বিদ্যালয় চরবাসীর চাওয়া।

এ জাতীয় আরও খবর

ফেসবুকে আমরা