1. admin@upokulbarta.news : admin :
  2. bangladesh@upokulbarta.news : যুগ্ম সম্পাদক : যুগ্ম সম্পাদক
  3. bholasadar@upokulbarta.news : বার্তা সম্পাদক : বার্তা সম্পাদক
বৃহস্পতিবার, ২০ জুন ২০২৪, ০১:৪৬ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
নানা আয়োজনে পলিত হচ্ছে দৈনিক পত্রদূত সম্পাদক স.ম আলাউদ্দীন মৃত্যুবার্ষিকী সাতক্ষীরায় ২৪১ জনের মাঝে ১৭ লাখ টাকার অনুদানের চেক বিতরণ কুমিল্লায় দেশ ও জাতির কল্যাণে দোয়া ঈদ উপলক্ষে রেমালে ক্ষতিগ্রস্থদের মাঝে খাদ্য বিতরণ করলো মাহাবুবা মতলেব তালুকদার ফাউন্ডেশন ৷ ভোলায় ঘুর্ণিঝড় রিমেলে ক্ষতিগ্রস্ত ২৫০ পরিবারের মাঝে ১৫ লক্ষ টাকা বিতরণ করল কোস্ট ফাউন্ডেশন মোংলায় দিন দুপুরে দোকান ঘর ভাংচুর ও জবর দখলের চেষ্টা বর্তমান সরকার অসহায় দুস্থদের সরকার-মেয়র শেখ আ: রহমান জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবেলায় পরিকল্পনা আছে বটে, কিন্তু বাস্তবায়নে বাজেট নেই বাগেরহাটে কলেজ শিক্ষকদের বেসিক আইসিটি প্রশিক্ষণের সনদ প্রদান বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে ফকিরহাটের নবনির্বাচিত চেয়ারম্যানগণের শ্রদ্ধা নিবেদন

দেখার কেউ নেই নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জের আশ্রয় কেন্দ্রটি ।

কবিতা ও সাহিত্য সম্পাদকঃ
  • আপডেট সময় : মঙ্গলবার, ১৯ এপ্রিল, ২০২২
  • ১৩৮ বার পঠিত

বিশেষ প্রতিনিধিঃ

১৯৮৫ সালের ঘূর্ণিঝড়ের পর ৮৬/৮৭ সালে বাংলাদেশ রেডক্রিসেন্ট সোসাইটি কর্তৃক নোয়াখালীর কোম্পানী গঞ্জ মুছাপুর মৌলভী বাজার সংলগ্ন এলাকায় একটি আশ্রয় কেন্দ্র নির্মিত হয়,১৯৮৮ সালে এই মুছাপুর আশ্রয় কেন্দ্রে একটি শিশু শিক্ষা কার্যক্রম চালু হলে আমি তখন ঐ স্কুলে প্রথম শ্রেণীতে ভর্তি হই,১৯৯২ সাল পর্যন্ত এই শিক্ষা কার্যক্রম চলতে থাকে।

সেই শিশুকাল থেকে দেখে আসছি একজন লোকের তত্বাবদানে আশ্রয় কেন্দ্রটি পরিচালিত হয়ে আসছে।আশ্রয় কেন্দ্রের সকল স্থাবর অস্থাবর সকল সম্পদ তিনি একাই ভোগ করে আসছেন।মনে হয় যেন বাপ দাদার সম্পত্তি।কাউকে আশ্রয় কেন্দ্র এলাকার গাছের একটি ডাল পর্যন্ত ধরতে দেয় না,বলা আছে আশ্রয় কেন্দ্রের চারিপাশে ১.৫ কিলোমিটারের মধ্যে লোকজন নিয়ে আশ্রয় কেন্দ্র পরিচালনা কমিটি করা।কিন্তু কোন এক সময় কাগজে কলমে কমিটি করা হলেও কেউ জানে না কমিটিতে কাদের নাম আছে,কমিটি যে আছে এ কথাও কাউকে বুঝতে দেওয়া হয় না।আশ্রয় কেন্দ্রের আয়ের উৎসঃ পুকুরে মাছ চাষ, গাছপালা,ফল ফলাদি বিক্রি করে টাকাগুলো কোথায় যায় কেউ জানে না।

আশ্রয় কেন্দ্রের নীচে টিন দিয়ে ঘেরাও করে অটোরিক্সা চার্জের জন্য ভাড়া দেয়া হয়।আশ্রয় কেন্দ্রের ভিতরে বিভিন্ন সময়ে জেলেদের জাল রাখা হয় ভাড়া নিয়ে,যা দুর্যোগ মহুত্যে জনসাধারণের মারাত্নক অসুবিধা হয়।এমন অনিময় ও আত্বসাদের কথা নোয়াখালী জেলা ইউনিটের কর্মকর্তা জনাব আব্দুল করিম স্যারের নিকট জানতে চাইলে তিনি বলেন,আশ্রয় কেন্দ্র ব্যবস্থাপনা কমিটি আছে তাদের সাথে যোগাযোগ করুন।

এলাকায় খোঁজ নিলে কেউ বলতে পারে না কমিটি আছে কিনা?তাই বাংলাদেশ রেডক্রিসেন্ট সোসাইটি ও যথাযথ কর্তৃপক্ষের নিকট আকুল আবেদন আশ্রয় কেন্দ্রের সম্পদ রক্ষা ও আগামি দুর্যোগ মহুত্যে জনগণের দুর্ভোগের কথা চিন্তা করে তড়িৎ গতিতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য বিনীত ভাবে অনুরোধ রইল।

এ জাতীয় আরও খবর

ফেসবুকে আমরা