1. admin@upokulbarta.news : admin :
  2. bangladesh@upokulbarta.news : যুগ্ম সম্পাদক : যুগ্ম সম্পাদক
  3. bholasadar@upokulbarta.news : বার্তা সম্পাদক : বার্তা সম্পাদক
শুক্রবার, ২৪ মে ২০২৪, ০১:১১ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
ভোলার লালমোহনে পুলিশকে মারধরের ঘটনায় মামলা, আটক-৩ ভোলায় কঠোর নিরাপত্তার মধ্য দিয়ে অনুষ্ঠিত হচ্ছে ৩ উপজেলা নির্বাচন ধলীগৌরনগর ইউপি নির্বাচনে মঞ্চ লুঙ্গী পড়া মানুষের জন্য বিশাল পথসভায় নেহাল পাটোয়ারী ভাইস চেয়ারম্যান থেকে চেয়ারম্যান হলেন ইউনুস, ভোলার ৩ উপজেলায় নির্বাচন সাতক্ষীরার ইছামতি নদীতে ভারতীয় নাগরিকের মরদেহ উদ্ধার! রাজশাহীতে পুষ্টি বিষয়ক মাল্টি সেক্টরাল সমন্বিত কর্মশালা অনুষ্ঠিত রামপালে মেধাবী অন্বেষণ কুইজ প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত রামপালে গলায় ফাঁস দিয়ে যুবক যুবতীর আত্মহত্যা ধলীগৌরনগর ইউপি নির্বাচন- সুখেদুঃখে মানুষের পাশে থাকবেন সংরক্ষীত সদস্য প্রার্থী নাসিমা লালমোহন উপজেলা নির্বাচন২৪ নির্বাচিত হলে বদরপুরে সবচেয়ে বেশি উন্নয়ন করবো-প্রার্থী আকতার হোসেন

তজুমদ্দিনে ৬৬ পিচ ইয়াবা উদ্ধারের পরে সমঝোতা

নির্বাহী সম্পাদকঃ
  • আপডেট সময় : মঙ্গলবার, ২৯ মার্চ, ২০২২
  • ১৪১ বার পঠিত
তজুমদ্দিন  (ভোলা)  প্রতিনিধিঃ
ভোলার তজুমদ্দিনের শম্ভুপুর ইউনিয়নের দক্ষিন খাসের হাট বাজারে এক ব্যবসায়ীর দোকান থেকে ৬৬ পিস ইয়াবা উদ্ধার করার পর সমযোতার মাধ্যমে অভিযুক্তকে ছেড়ে দেয়ার  অভিযোগ পাওয়া গেছে। সোমবার সন্ধ্যা সাড়ে ছয়টার দিকে জেলা মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের উপ-পরিদর্শক শফিকুর রহমান এর নেতৃত্বে দক্ষিন সম্ভুপুর বাজারের মনির স্টোরে এ অভিযান পরিচালনা করা হয়।
অভিযোগ সুত্রে যায়, গত ২৮ মার্চ ভোলা জেলা মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের একটি দল উপজেলার দক্ষিন শম্ভুপুর বাজারের মনির স্টোরে তল্লাশি চালায়। এসময় দোকানের এক কোনায় একটি সিগারেটের প্যাকেটে কালো পলিথিন মোড়ানো ৬৬ পিছ ইয়াবা উদ্ধারের দাবী করে তারা। ইয়াবা উদ্দারের ঘটনায় ব্যবসায়ী ও দোকানমালীক মোঃ খলিলকে অভিযুক্ত করা হয়। ব্যবসায়ী খলিল জানান, তারা দোকানে প্রবেশ করেই অন্য কোথাও তল্লশী না করেই ৪-৫ মিনিটের মধ্যেই একটি সিগারেটের প্যাকেট বের করেই তা থেকে ৬৬ পিছ ইয়াবার কথা জানায়। কিন্তু এসব ইয়াবা কিনা অথবা তা আসলেই কোথা হতে আনা হয়েছে সেটা নিয়ে আমাদের সন্দেহ রয়েছে। মনির স্টোরের সামনের ব্যবসায়ী ও প্রত্যক্ষদর্শী ভুঁইয়া ইলেকট্রনিক্সের মালীক লোকমান ভূঁইয়া জানান, মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের একটি দল এসে তাকে দোকান থেকে ডেকে এনে সামনে দাড় করিয়ে রেখে তারা মনির স্টোরে তল্লাশি চালায়। কিছুক্ষণ পর তারা ৬৬ পিছ ইয়াবা উদ্ধারের দাবী করে।
এঘটনার পর স্থানীয় বাজার ব্যবসায়ী ও ইজারাদারগণ মিলে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের লোকজনের সাথে কথা বলেন। পরে তার সেখান থেকে গিয়ে গরুর হাটের ইজারাদার অফিসে বসে উভয় পক্ষ সমযোতা করে। ব্যবসায়ী লোকমান, জাহাঙ্গীর, বচ্চু হাং ও ইজারাদার ফরিদ পাটওয়ারীর জিম্মায় অভিযুক্ত খলিল কে ছেড়ে দেয়া হয়।
জেলা মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের উপ-পরিদর্শক শফিকুর রহমান মঙ্গলবার সাংবাদিকদের জানান, আমরা গোপন সংবাদের ভিত্তিতে সেখানে অভিযান করি। খলিলের দোকান হতে কোন কিছু উদ্ধার করা যায়নি। কিন্তু, অভিযুক্ত খলিলকে আটক করে গরুর হাটের ইজারাদারের অফিসে দীর্ঘ বৈঠক ও জামিননামার কথা বলে স্বাক্ষর গ্রহনের কারন সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি আরো দাবী করেন, আমরা মানবিক কারনে ও নির্দোষ জেনে তাকে হয়রানী করতে চাইনি। তবে, এটি নিষ্ফল অভিযান হওয়ায় সবার কাছ থেকে সাদা কাগজে স্বাক্ষর নেয়া হয়েছে।

বিঃ দ্রষ্টব্য: সকল অভিযোগ ও কর্মকর্তার বক্তব্য রেকর্ড আছে।

এ জাতীয় আরও খবর

ফেসবুকে আমরা