1. admin@upokulbarta.news : admin :
বুধবার, ৩০ নভেম্বর ২০২২, ১১:৪৪ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
ভেদুরিয়া চরকালী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ফান্ডের টাকা আত্মসাতের অভিযোগ প্রধান শিক্ষক সিরাজুল ইসলাম এর বিরুদ্ধে ভেদুরিয়ায় নবগঠিত ইউনিয়ন কমিটির আনন্দ মিছিলে দুষ্কৃতিকারীদের অতর্কিত হামলার অভিযোগ লালমোহনে স্বামী কর্তৃক স্ত্রী নির্যাতনের অভিযোগ আরডিএ’র নির্বাহী প্রকৌশলীর বিরুদ্ধে ২শ ৬ কোটি টাকার কাজে অনিয়ম দুর্নীতির অভিযোগ ভবিষ্যৎ প্রজন্মকে সুস্থ স্বাস্থ্যের জনশক্তি হিসেবে গড়ে তুলতে হবে সিদ্ধিরগঞ্জ,চৌধুরী বাড়ী বাইতুল মা’মুর জামে মসজিদের পুনঃনির্মান ভিত্তি প্রস্তর উদ্বোধন মোহনপুরে শহীদ বুদ্ধিজীবী ও মহান বিজয় দিবস উদযাপনে প্রস্তুতিমূলক সভা অনুষ্ঠিত পটুয়াখালীতে স্কুল ঝড়ে পড়া ১৭ হাজার শিশুদের শিক্ষা কার্যক্রম শুরু জেলে পরিবারের নারীদের অধিকার আদায়ে ভোলায় নেটওয়ার্কিং প্রশিক্ষণ অনুষ্ঠিত রাস্তা কেটে বরযাত্রীকে আটকে দেওয়া আলোচিত সেই মেম্বার এর নেতৃত্বে জমি দখলের অভিযোগ, সংঘর্ষ, আহত-১

তজুমদ্দিনে ৬৬ পিচ ইয়াবা উদ্ধারের পরে সমঝোতা

নির্বাহী সম্পাদকঃ
  • আপডেট সময় : মঙ্গলবার, ২৯ মার্চ, ২০২২
  • ৬১ বার পঠিত
তজুমদ্দিন  (ভোলা)  প্রতিনিধিঃ
ভোলার তজুমদ্দিনের শম্ভুপুর ইউনিয়নের দক্ষিন খাসের হাট বাজারে এক ব্যবসায়ীর দোকান থেকে ৬৬ পিস ইয়াবা উদ্ধার করার পর সমযোতার মাধ্যমে অভিযুক্তকে ছেড়ে দেয়ার  অভিযোগ পাওয়া গেছে। সোমবার সন্ধ্যা সাড়ে ছয়টার দিকে জেলা মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের উপ-পরিদর্শক শফিকুর রহমান এর নেতৃত্বে দক্ষিন সম্ভুপুর বাজারের মনির স্টোরে এ অভিযান পরিচালনা করা হয়।
অভিযোগ সুত্রে যায়, গত ২৮ মার্চ ভোলা জেলা মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের একটি দল উপজেলার দক্ষিন শম্ভুপুর বাজারের মনির স্টোরে তল্লাশি চালায়। এসময় দোকানের এক কোনায় একটি সিগারেটের প্যাকেটে কালো পলিথিন মোড়ানো ৬৬ পিছ ইয়াবা উদ্ধারের দাবী করে তারা। ইয়াবা উদ্দারের ঘটনায় ব্যবসায়ী ও দোকানমালীক মোঃ খলিলকে অভিযুক্ত করা হয়। ব্যবসায়ী খলিল জানান, তারা দোকানে প্রবেশ করেই অন্য কোথাও তল্লশী না করেই ৪-৫ মিনিটের মধ্যেই একটি সিগারেটের প্যাকেট বের করেই তা থেকে ৬৬ পিছ ইয়াবার কথা জানায়। কিন্তু এসব ইয়াবা কিনা অথবা তা আসলেই কোথা হতে আনা হয়েছে সেটা নিয়ে আমাদের সন্দেহ রয়েছে। মনির স্টোরের সামনের ব্যবসায়ী ও প্রত্যক্ষদর্শী ভুঁইয়া ইলেকট্রনিক্সের মালীক লোকমান ভূঁইয়া জানান, মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের একটি দল এসে তাকে দোকান থেকে ডেকে এনে সামনে দাড় করিয়ে রেখে তারা মনির স্টোরে তল্লাশি চালায়। কিছুক্ষণ পর তারা ৬৬ পিছ ইয়াবা উদ্ধারের দাবী করে।
এঘটনার পর স্থানীয় বাজার ব্যবসায়ী ও ইজারাদারগণ মিলে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের লোকজনের সাথে কথা বলেন। পরে তার সেখান থেকে গিয়ে গরুর হাটের ইজারাদার অফিসে বসে উভয় পক্ষ সমযোতা করে। ব্যবসায়ী লোকমান, জাহাঙ্গীর, বচ্চু হাং ও ইজারাদার ফরিদ পাটওয়ারীর জিম্মায় অভিযুক্ত খলিল কে ছেড়ে দেয়া হয়।
জেলা মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের উপ-পরিদর্শক শফিকুর রহমান মঙ্গলবার সাংবাদিকদের জানান, আমরা গোপন সংবাদের ভিত্তিতে সেখানে অভিযান করি। খলিলের দোকান হতে কোন কিছু উদ্ধার করা যায়নি। কিন্তু, অভিযুক্ত খলিলকে আটক করে গরুর হাটের ইজারাদারের অফিসে দীর্ঘ বৈঠক ও জামিননামার কথা বলে স্বাক্ষর গ্রহনের কারন সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি আরো দাবী করেন, আমরা মানবিক কারনে ও নির্দোষ জেনে তাকে হয়রানী করতে চাইনি। তবে, এটি নিষ্ফল অভিযান হওয়ায় সবার কাছ থেকে সাদা কাগজে স্বাক্ষর নেয়া হয়েছে।

বিঃ দ্রষ্টব্য: সকল অভিযোগ ও কর্মকর্তার বক্তব্য রেকর্ড আছে।

এ জাতীয় আরও খবর

ফেসবুকে আমরা