1. admin@upokulbarta.news : admin :
  2. bangladesh@upokulbarta.news : যুগ্ম সম্পাদক : যুগ্ম সম্পাদক
  3. bholasadar@upokulbarta.news : বার্তা সম্পাদক : বার্তা সম্পাদক
শুক্রবার, ২৪ মে ২০২৪, ১২:২৭ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
ভোলার লালমোহনে পুলিশকে মারধরের ঘটনায় মামলা, আটক-৩ ভোলায় কঠোর নিরাপত্তার মধ্য দিয়ে অনুষ্ঠিত হচ্ছে ৩ উপজেলা নির্বাচন ধলীগৌরনগর ইউপি নির্বাচনে মঞ্চ লুঙ্গী পড়া মানুষের জন্য বিশাল পথসভায় নেহাল পাটোয়ারী ভাইস চেয়ারম্যান থেকে চেয়ারম্যান হলেন ইউনুস, ভোলার ৩ উপজেলায় নির্বাচন সাতক্ষীরার ইছামতি নদীতে ভারতীয় নাগরিকের মরদেহ উদ্ধার! রাজশাহীতে পুষ্টি বিষয়ক মাল্টি সেক্টরাল সমন্বিত কর্মশালা অনুষ্ঠিত রামপালে মেধাবী অন্বেষণ কুইজ প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত রামপালে গলায় ফাঁস দিয়ে যুবক যুবতীর আত্মহত্যা ধলীগৌরনগর ইউপি নির্বাচন- সুখেদুঃখে মানুষের পাশে থাকবেন সংরক্ষীত সদস্য প্রার্থী নাসিমা লালমোহন উপজেলা নির্বাচন২৪ নির্বাচিত হলে বদরপুরে সবচেয়ে বেশি উন্নয়ন করবো-প্রার্থী আকতার হোসেন

চরফ্যাসনের মেঘনায় শীত মৌসুমে ধরা পড়ছে ছোট সাইজের ইলিশ, বিপাকে মৎস্যজীবিরা।

রেডিও মেঘনা, চরফ্যাসনঃ
  • আপডেট সময় : বুধবার, ১৯ জানুয়ারি, ২০২২
  • ১৭০ বার পঠিত
সুরভী ও অধরাঃ
চরফ্যাসনের মেঘনায় শীত মৌসুমের মাঝামাঝি সময় শেষ হলেও মৎস্যজীবিদের জালে বড় ইলিশের তেমন দেখা নেই। সরকার জাটকা সংরক্ষন অভিযান দেওয়াতে নদীতে জাটকার বিপরীতে ধরা পড়ছে কম সংখ্যক বড় সাইজের ইলিশ। এতে মৎস্যজীবিসহ আড়দদারগন গুনতে হচ্ছে লোকসান।
সরেজিমে গিয়ে মৎস্য ঘাট ঘুরে দেখা যায়, বর্ষার মৌসুমে চরফ্যাসনের প্রতিটি মৎস্য ঘাট গুলোতে যে রকমের হাক ডাক দিয়ে বড় ইলিশ বিক্রি করতে দেখা যেত, শীত মৌসুমে সে পরিমান বড় মাছের জমজমাট বেচা কেনা নেই বললেই চলে। প্রতিবছর দৈনিক এ সময় উপজেলার মৎস্য ঘাট, বাজার ও একটি আড়দে ৫০-৬০ মণ বড় ইলিশ বিক্রি হতো। এবার এসব স্থানে মাত্র ২০-২৫ মণ বিক্রি হচ্ছে।
নতুন সুলিজ মৎস্য ঘাটের আবুল কালামসহ আরো অনেক মৎস্যজীবি বলেন, এখন নদীতে জাটকা অবরোধ থাকায় ঘাটে বসেই জাল মেরামতের কাজ করছেন। শীতে নদীতে বড় মাছের তুলনায় ছোট ইলিশের পরিমান বেশি থাকায় নদীতে তেমন যাওয়া হয় না। ছোট মাছের দাম খুব কম এতে মাদ্রাজ নতুন সুলিজ ঘাট সহ প্রায় সব ঘাটের জেলেরাই খুব কষ্টে দিন পাড় করছে।
মাদ্রাজ নতুন সুলিজ মৎস্যঘাটের আড়দদার নোমান বলেন, নদীতে এখন ১০-১২ ইঞ্চি সাইজের ইলিশ বেশি। জাটকা বাদ দিয়ে প্রায় ৩শত গ্রাম থেকে ১ কেজি সাইজের ইলিশ এখন বেশি আসে। প্রতিদিন প্রায় ২০ থেকে ২৫ মন ছোট- বড় ইলিশ আহরন হয় এই ঘাটে। এতে সকল জেলে ও আড়দারদের খরচ পুষিয়ে লাভের তুলনায় লোকাসান বেশি হয়।
উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা মোঃ মারুফ মিনার জানান, প্রতি বছরই ১ নভেম্বর থেকে ৩০ জুন পর্যন্ত জাটকা সংরক্ষন অভিযান পলিত হয়। অক্টোবর মাসে মাছ ডিম ছাড়ার পরে বড় হতে সময় লাগে বলেই শীতে ইলিশের সাইজ ছোট থাকে। এখন নদীতে প্রচুর পরিমনে ১০ ইঞ্চির উপরের মাছ ধরা পড়ছে। ফেব্রুয়ারী মাসের মধ্যে মাছের সাইজ বড় হয়ে যাবে আর মৎস্যজীবিরা লাভবান হবে।
এ জাতীয় আরও খবর

ফেসবুকে আমরা