1. admin@upokulbarta.news : admin :
রবিবার, ০৩ মার্চ ২০২৪, ০২:১৪ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
পশ্চিম চর উমেদ ইউপি নির্বাচন চেয়ারম্যান নির্বাচিত হলে ইভটিজিং বন্ধ করবেন সালেম হাওলাদার ভোলায় সাংবাদিক মহিউদ্দিনের উপর হামলায় গণমাধ্যমে নিন্দা-প্রতিবাদের ঝড় যৌতুকের দাবিতে পুত্রবধূকে মারধরের অভিযোগ শশুর শাশুড়ির বিরুদ্ধে মাছ শিকারে ২ মাসের নিষেধাজ্ঞা শুরু মেঘনা ও তেঁতুলিয়া নদীতে গুরু -আঃ সামাদ ভোলার লালমোহন পশ্চিম চর উমেদ ইউপি নির্বাচন লালমোহন পশ্চিম চর উমেদ ইউপি নির্বাচন শিক্ষার মানোন্নয়ন করতে চান চেয়ারম্যান প্রার্থী অধ্যক্ষ সেলিম নারীর গুণ – আঃ সামাদ দৌলতখানে যুব রেড ক্রিসেন্টে দলনেতা মাশরাফি উপ-নেতা ইমতিয়াজ ও রহিমা মোংলায় ৫ শতাধিক চক্ষু রোগীকে বিনামূল্যে চিকিৎসা সেবা প্রদান

ভোলায় সূর্যের দেখা নেই, হিমেল হাওয়ায় কাঁপছে জনপদ

নিজম্ব প্রতিনিধিঃ
  • আপডেট সময় : সোমবার, ১৫ জানুয়ারি, ২০২৪
  • ৪৭ বার পঠিত
dav

এম মানছুর, ভোলা প্রতিনিধি।।

ভোলাতে দেখা নেই সূর্যের কাঁপছে হিমেল হাওয়ায় জনপদে সাধারণ মানুষ গত কয়েক দিন যাবৎ ভোর থেকে কুয়াশার প্রকোপ কম থাকলেও বেড়েছে শীতের তীব্রতা। এই দিকেও দেখা পাচ্ছে সাধারণ জনগণ সূর্যের, অন্য দিকে বইছে উত্তরের তীব্র বাতাস-সব মিলিয়ে শীতে জবুথবু ভোলায় প্রান্তিক জনপদের সাধারণ মানুষ। সরেজমিন গুড়ে দেখা যায়, সকাল থেকে শীতের তীব্রতা থাকায় বিপাকে পড়ছেন কর্মজীবী থেকে বয়ষ্ক ও শিশু এবং শহরমুখী সাধরাণ মানুষরা ও। বিশেষ করে দৈনন্দিন খেটে খাওয়া সাধারণ মানুষ পড়েছেন চরম ভোগান্তির কাতারে।

শীতের কারণে মাঠ-ঘাট প্রায় ফাঁকা। ফসলের ক্ষেতে কৃষকে তেমন একটা কাজ করতেও দেখা যায়নি। বিশেষ করে রিক্সাভ্যান-ইজিবাইকের সংখ্যাও কম রয়েছে রাস্তায়। অতি প্রয়োজন ছাড়া ঘরের বাহিরে বের হচ্ছে না সাধারণ মানুষ। ফলে জেলার তৃণমূল পর্যায়ের হাট-বাজারেও লোকসমাগম অনেক অংশে কম। ভ্রমণ কালে কথা হয় অটোচালাক মোঃ জামাল এর সাথে তিনি বলেন, সকাল থেকেই প্রচুর শীত। এই কয়েক দিন যাবৎ কিন্তু সকালে তেমন কোনো যাত্রীর দেখা নাই। যাত্রী হয় অল্প তাও আবার ১০ টার দিকে থেকে দুপুর ও বিকাল এর দিকে। আর বিশেষ করে ঢাকা থেকে লঞ্চযোগে মানুষ আসে তখন খুব কম যাত্রী পাই আমরা। এখন আমাদের মত সাধারণ মানুষ এই ঠাণ্ডার বিতর রাস্তায় রাস্তায় গুড়ে বেড়ানো বহু কষ্টকর। আজকে সারাদিন বেসি ভাড়া মারতে পারি নাই।

উত্তর ভেদুরিয়া ০৪ নং এলাকার বাসিন্দা মোঃ মন্নান মোল্লা জানান, গত কয়েকদিন ধরেই প্রচুর শীত পড়ছে। তবে আজ সকাল থেকে শীত বেশি। উত্তরের বাতাসের কারণে শীত বেড়েছে। তাছাড়া চর এলাকা খোলামেলা থাকায় বাতাস বইলে শীত কয়েক গুন বেড়ে যায়। এর মধ্যে আবার রোদ নেই। সব মিলিয়ে চরের মানুষের জীবন অনেক কষ্টের।

স্থানীয় কৃষক মোঃ ছালেম ফরাজী, মোঃ উমর ফরাজী, মোঃ মোস্তফা হাওলাদার জানান, শীতের কারণে কিছুদিন যাবৎ ক্ষেতে যেতে পারিনি। ঘর থেকে বাইরে বের হওয়া কষ্টকর। আমাদের মতো বয়স্কদের কাছে শীত বেশি মনে হয়। হাত-পা ঠাণ্ডা হয়ে আসে। এই দিকে শীতের কারণে শিশুদের ঠাণ্ডাজনিত রোগ বেড়েছে বলে মানুষের মুখে শুনতে পাচ্ছি। ফলে বেড়েছে শিশুদের ঠাণ্ডাজনিত রোগের ওষুধ বিক্রি। স্থানীয় পল্লি-চিকিৎসক মোঃ হাসান মাহমুদ এই বিষয় সাংবাদিকদের জানান, এলাকায় শীতের প্রবাহ আগের তুলনায় বহুগুন বেশি বৃদ্ধি পাচ্ছে। এবং শিশুদের ঠান্ডাজনিত রোগের লক্ষণ পর্যায়ে ক্রমে বেড়েই চলেছে। তাই এলাকা শিশুদের পরিবার ও প্রিয়জন ছুটছে ঔষধের দোকান গুলোতে। তিনি আরও জানান, বিকেল হলেই দোকানে শিশুদের ঠাণ্ডা-কাঁশির ওষুধ নিতে ভিড় পড়ে যায় বাচ্চার মায়েদের।

উত্তরের হিমেল বাতাস আর মেঘে ঢাকা সূর্য। দুইয়ে মিলে কনকনে শীত বিরাজ করছে দ্বীপজেলা ভোরার প্রকৃতিতে। আর এই কনকনে ঠাণ্ডায় জেলার প্রান্তিক পর্যায়ের জন সাধারণ আর ছিন্নমূল মানুষেরা পড়েছেন চরম বিপাকে। এই দিকে এই বৈরি আবহাওয়া বিরাজ করতে থাকলে জনজীবন বিপর্যস্ত হবে বলে জানান খেটে খাওয়া মানুষেরা।

এ জাতীয় আরও খবর

ফেসবুকে আমরা