1. admin@upokulbarta.news : admin :
রবিবার, ১৪ এপ্রিল ২০২৪, ০৫:৪৭ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
শেখ হেলাল উদ্দীন সরকারি কলেজে বর্ণাঢ্য আয়োজনে বর্ষবরণ উৎসব উদযাপন তন্বীর প্রেমে পড়ে ঢাকার সুবর্ণা মোংলায় কুমিল্লার মহেশপুর শাহী ঈদগাহে নামাজ অনুষ্ঠিত বোরহানউদ্দিনের তিন গ্রামে ঈদুল ফিতর অনুষ্ঠিত বিধবা নারীকে ঘর করে দিলেন সমাজসেবক রাজিব হায়দার নারায়ণগঞ্জ মহানগরী জামায়াতের উদ্যােগে সুবিধা বঞ্চিতদের মাঝে ঈদ সামগ্রী বিতরণ মনপুরায় নবনির্বাচিত ইউপি সদস্যদের শপথ গ্রহণ দিনের বেলায় রাত নেমে এলো মনপুরায়, আকষ্মিক ঝড় ও শিলাবৃষ্টিতে লন্ডভন্ড বাড়িঘর-গাছপালা, আহত ৮ ভোলায় ঈদুল ফিতর উপলক্ষে জেলা পুলিশের ফ্রি বাস সার্ভিসের শুভ উদ্বোধন ভোলাবাসীকে পবিত্র ঈদ উল ফিতরের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন মজনু মোল্লা

নারী ও শিশু নির্যাতনের বিধানসমূহ

আইন সম্পাদক
  • আপডেট সময় : শনিবার, ২৮ অক্টোবর, ২০২৩
  • ৬১ বার পঠিত
আমাদের সমাজে নারী ও শিশুদের ওপর ঘৃণ্য অপরাধের জন্য দণ্ডবিধির বিধানসমূহ অপর্যাপ্ত থাকায় সরকার ১৯৯৫ সালে ‘নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন, ১৯৯৫’ প্রণয়ন করেন, যা সর্বশেষ ২০২০ সালে সংশোধিত হয় এবং নারী ও শিশু নির্যাতন দমন (সংশোধন) আইন, ২০২০ নামে অভিহিত।
সংশোধিত এ আইনের উল্লেখযোগ্য কিছু সংশোধন এবং একজন আইনজীবী হিসেবে আইনি পরামর্শ দিতে গিয়ে, সংক্ষুব্ধ ব্যক্তি বা ভিকটিম যেসব বাস্তব সমস্যার মুখোমুখি হন, তা অভিজ্ঞতার আলোকে আলোচনার প্রয়াস থেকে আজকের এই লেখা।
পুলিশ অভিযোগ নিতে অস্বীকার করলে করণীয় : প্রথম যে প্রশ্নের মুখোমুখি হতে হয় তা হচ্ছে, পুলিশের কাছে অভিযোগ করার পরেও পুলিশ মামলা গ্রহণ করছে না। এখন কী করব? সাধারণত অপরাধের শিকার ব্যক্তির বর্ণিত ঘটনা এমন থাকে যে, অপরাধ যিনি করেছেন (অপরাধে অভিযুক্ত ব্যক্তি) তিনি স্হানীয়ভাবে একজন প্রভাবশালী ব্যক্তি হওয়ায় তার বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ পুলিশ গ্রহণ করছেন না। ওপরে বর্ণিত বর্ণনা অনুযায়ী কারণ বা অন্য যে কোনো কারণে হোক, কোনো অভিযোগকারী যদি পুলিশের কাছে এই আইনের অধীন কোনো অপরাধের অভিযোগ গ্রহণ করার অনুরোধ করে ব্যর্থ হন, তাহলে এই আইনের ২৭ ধারা অনুযায়ী অভিযোগকারী ব্যক্তি কোনো পুলিশ কর্মকর্তাকে কোনো অপরাধের অভিযোগ গ্রহণ করার জন্য অনুরোধ করে ব্যর্থ হয়েছেন—এই মর্মে হলফনামা সহকারে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের কাছে অভিযোগ দাখিল করতে পারবেন। নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনের অধীন অপরাধ বিচারের জন্য প্রত্যেক জেলা সদরে একটি করে ট্রাইব্যুনাল থাকে (প্রয়োজন অনুসারে একাধিক ট্রাইব্যুনালও থাকতে পারে)। এইরূপ ট্রাইব্যুনাল ‘নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল’ নামে অভিহিত বা পরিচিত।
কখন এই আইনের ১১ (গ) ধারার অধীন মামলা দায়ের করা যায় :বৈবাহিক জীবনে পারস্পরিক মনোমালিন্যের জের ধরে ঘটে যাওয়া শারীরিক নির্যাতনের মতো অপ্রীতিকর ঘটনা, যা কোনোভাবেই গ্রহণযোগ্য নয়। তবে এ ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটলেই সবাই ১১(গ) ধারা, যৌতুকের জন্য সাধারণ আঘাত মামলা করতে চান। শারীরিক নির্যাতন বা মারামারি ঘটলেই তার জন্য ১১(গ)-তে ঢালাওভাবে মামলা করা যাবে না। যৌতুকের দাবিতে নির্যাতন ঘটলে কেবল তখনই ১১(গ)-তে মামলা করা যায়। বিবাহিত জীবনে অন্য কোনো কারণে (যেমন:পরকীয়া আসক্ত হয়ে, ঝগড়া ইত্যাদি) মনোমালিন্য থেকে শারীরিক আঘাত মামলা করা যাবে ।
এ জাতীয় আরও খবর

ফেসবুকে আমরা