1. admin@upokulbarta.news : admin :
  2. bangladesh@upokulbarta.news : যুগ্ম সম্পাদক : যুগ্ম সম্পাদক
  3. bholasadar@upokulbarta.news : বার্তা সম্পাদক : বার্তা সম্পাদক
সোমবার, ২৭ মে ২০২৪, ০১:৪২ অপরাহ্ন

লালমোহনে শিশুর হত্যাকারী সন্দেহে চার আসামির বিরুদ্ধে রিমান্ড আবেদন

স্টাফ রিপোর্টারঃ
  • আপডেট সময় : রবিবার, ১৫ অক্টোবর, ২০২৩
  • ২৯৭ বার পঠিত

ভোলার লালমোহনে মো. রায়হান নামে ১০ বছরের এক শিশু হত্যার ঘটনায় গ্রেফতারকৃত চার আসামির বিরুদ্ধে রিমান্ড আবেদন করেছে পুলিশ। শুক্রবার বিকালে তাদের আদালতে পাঠানোর পর এ রিমান্ড আবেদন করে লালমোহন থানা পুলিশ। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন ওসি এসএম মাহবুব উল আলম।
তিনি বলেন, ২০২১ সালের ১২ অক্টোবর খেলতে গিয়ে নিখোঁজ হয় পৌরসভার ৭ নম্বর ওয়ার্ডের মো. রাশেদ ও ঝর্ণা বেগম দম্পত্তির ছেলে মো. রায়হান। এ ঘটনার পর দিন লালমোহন থানায় ওই শিশুর পরিবারের পক্ষ থেকে একটি সাধারণ ডায়েরি করা হয়। এর কয়েক মাস পর ২০২২ সালের ২৭ মার্চ বিকালে শিশু রায়হানের বাড়ির দুইশত গজ দূরের একটি জোড়াখালের মধ্যে মাথার খুলি দেখতে পান স্থানীয়রা। সংবাদ পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে ওই জোড়াখালে তল্লাশি চালিয়ে হাড়, দাঁতের চোয়ালসহ শরীরের আরও কিছু অংশ উদ্ধার করেন। তখন এ ঘটনায় লালমোহন থানায় একটি অপমৃত্যুর মামলা দায়ের করা হয়।
ওসি এসএম মাহবুব উল আলম বলেন, উদ্ধারকৃত আলামতের মধ্যে মাঝার বেল্ট নিজেদের নিখোঁজ সন্তান রায়হানের বলে ওই সময় দাবি করেন মো. রাশেদ ও মোসা. ঝর্ণা বেগম। পরিবারের দাবির ভিত্তিতে ওই আলামতের ডিএনএ পরীক্ষা করা হয়। ওই পরীক্ষায় উদ্ধার হওয়া মাথা, হাড়, দাঁতের চোয়াল ও শরীরের অন্যান্য অংশ শিশু রায়হানের বাবা-মায়ের সঙ্গে মিলে যায়। এরপরই শিশু রায়হানকে হত্যার অভিযোগে চলতি বছরের ১৩ অক্টোবর লালমোহন থানায় বাদী হয়ে মামলা দায়ের করেন রায়হানের মা মোসা. ঝর্ণা বেগম। ওই মামলায় জমি বিরোধের জেরে ছেলেকে হত্যার সঙ্গে জড়িত সন্দেহে ৫ জনের নাম উল্লেখ করা হয়। মামলা দায়েরের পর দিনই বৃহস্পতিবার রাতে মো. মারুফ, মো. মাহবুব, মো. রিয়াজ ও মো. আলাউদ্দিন নামে চার আসামিকে গ্রেফতার করা হয়।
ওসি আরো বলেন, গ্রেফতারের পর ওই চার আসামিকে শুক্রবার বিকালে আদালতে প্রেরণ করা হয়। এরপর তাদের থেকে প্রকৃত ঘটনা উদঘাটনের জন্য রিমান্ড আবেদন করা হয়েছে। আদালত রিমান্ড মঞ্জুর করলে আসামিদের থানায় এনে জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে। আমরা শিশু রায়হান হত্যার ঘটনার রহস্য উদঘাটনে সর্বোচ্চ চেষ্টা অব্যাহত রেখেছি।

এ জাতীয় আরও খবর

ফেসবুকে আমরা