1. admin@upokulbarta.news : admin :
  2. bangladesh@upokulbarta.news : যুগ্ম সম্পাদক : যুগ্ম সম্পাদক
  3. bholasadar@upokulbarta.news : বার্তা সম্পাদক : বার্তা সম্পাদক
বুধবার, ২২ মে ২০২৪, ০৪:৪৫ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
উপজেলা নির্বাচনে নির্বাচিত হলে বদরপুরে সবচেয়ে বেশি উন্নয়ন করবো-প্রার্থী আকতার হোসেন ধলীগৌরনগর ইউপি নির্বাচন: সুখেদুঃখে মানুষের পাশে থাকবেন সংরক্ষিত সদস্য প্রার্থী “নাসিমা” হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ে জমে উঠেছে ভোলার ৩ উপজেলা নির্বাচন বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ ও বীরমুক্তিযোদ্ধা সালাউদ্দিন আহমাদ’র ৩৯ তম মৃত্যুবার্ষিকী ফকিরহাটে আনারস প্রতীকের নির্বাচনী জনসভা জনসমূদ্রে পরিনত বোরহানউদ্দিনে ভোটারকে টাকা দেয়ার ছবি ভাইরাল, ক্ষমা চেয়েছে চেয়ারম্যান মা রান্নার কাজে ব্যস্ত, ঘরে বিদ্যুৎষ্পৃষ্ট হয়ে প্রাণ গেল একমাত্র সন্তানের ভোলার নির্বাচন হবে অবাধ, সুষ্ঠু, নিরপেক্ষ ও গ্রহণযোগ্য- কমিশনার আহসান হাবিব সাতক্ষীরার তালায় ট্রাক উল্টে ২ শ্রমিক নিহত আহত ৭ লালমোহনে দুদকের উদ্যোগে দুর্নীতি বিরোধী বিতর্ক প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত

মানবতা বিরোধী অপরাধে অভিযুক্ত দুই পলাতক আসামী গ্রেফতার

যুগ্ম সম্পাদক
  • আপডেট সময় : শনিবার, ২৪ জুন, ২০২৩
  • ১১৬ বার পঠিত

নিজস্ব প্রতিনিধিঃ

রাজশাহীতে আন্তর্জাতিক যুদ্ধাপরাধ ট্রাইব্যুনালে বিচারাধীন মামলার দুইজন পলাতক আসামি গ্রেফতার করা হয়েছে।
শনিবার ( ২৪ জুন) রাত ১ টায় চারঘাট থানা পুলিশ অভিযান পরিচালনা করে দুই যুদ্ধাপরাধীকে আটক করেন। বিষয়টি নিশ্চিত করে প্রেস ব্রিফিং করেন রাজশাহী জেলা পুলিশ সুপার এবিএম মাসুদ হোসেন।
প্রেস ব্রিফিং এ বলা হয়, শুক্রবার দিনগত শনিবার রাত ১ টায় পুলিশ সুপার এবিএম মাসুদ হোসেনের নির্দেশনায় গোপন সংবাদের ভিত্তিতে চারঘাট থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) মোয়াজ্জেম হোসেন এবং এস আই সোহাইল আহমেদের নেতৃত্বে একটি অভিযানিক দল তাদের আটক করেন। আটক দুই ব্যাক্তি হলেন, চারঘাট থানার কালুহাটি গ্রামের মৃত হাবিল উদ্দিনের ছেলে মফিজ উদ্দিন (৭৫) ও একই গ্রামের মৃত মকছেদ খোরার ছেলে খেতাব (৮০) ।
এসময় পুলিশ আরো বলেন, ১৯৭১ সালের মহান মুক্তিযুদ্ধের সময় মানবতা বিরোধী অপরাধ সংঘটনের দায়ে অভিযুক্ত দুই আসামি দীর্ঘদিন পলাতক ছিলেন। নিখুঁত গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে ১৯৭১ সালের মহান মুক্তিযুদ্ধের সময় মানবতা বিরোধী অপরাধ সংঘটনের অভিযোগে চারঘাট মডেল থানায় দায়েরকৃত মামলা নং-১৩ তারিখ ০৯-৪-২০০৯ খ্রিঃ ধারা ৩০২/২০১/১০৯/৩৪ পেনাল কোড এর এজাহারনামীয় পলাতক আসামি ছিলেন তারা।
আটক ব্যক্তিদ্বয়ের মধ্যে খেতাব এলাকায় কুখ্যাত রাজাকার হিসেবে পরিচিত এবং ১৯৭১ সালে চারঘাট থানা এবং সংলগ্ন এলাকায় গণহত্যার দায়ে অভিযুক্ত। আসামিদ্বয়কে রাজশাহীর বিজ্ঞ আদালতের মাধ্যমে আন্তর্জাতিক মানবতা বিরোধী অপরাধ ট্রাইব্যুানালে হস্তান্তর করার বিষয়টি প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।
প্রেস ব্রিফিং এ আটক রাজাকার খেতাব এবং মফিজের নৃশংসতার কিছু বর্ণনা দেওয়া হয়:
বলা হয়, ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধ চলাকালীন চারঘাট থানা এবং সংলগ্ন এলাকায় পাকিস্তানী হানাদার বাহিনীর সহযোগিতায় রাজাকার খেতাব, মফিজ এবং তাদের অন্যান্য সহযোগীরা ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করেছিল। মুক্তিযোদ্ধাদের সহযোগিতা এবং আওয়ামী লীগের রাজনীতি করার কারণে এরা অনেকের বাড়িঘর পুড়িয়ে দিয়েছিল এবং নৃশংসভাবে মুক্তিকামী মানুষকে হত্যা করেছিল। উপরে উল্লেখিত মামলার বাদী চারঘাট থানার কালুহাটি গ্রামের গোলাম হোসেনের পিতা শহিদ রওশন আলী সরকার এবং পাশ্বর্বর্তী রোস্তমপুর গ্রামের কলিম উদ্দিনকে এদের সহযোগিতায় পাকিস্তানী হানাদার বাহিনী আটক করে বিবস্ত্র করে গাড়ির পিছনে বেঁধে নৃশংসভাবে হত্যা করেছিল। এর পাশাপাশি বাদী এবং তাদের প্রতিবেশী অনেকের বাড়িঘর আগুনে পুড়িয়ে নিশ্চিহ্ন করে দিয়েছিল।

এ জাতীয় আরও খবর

ফেসবুকে আমরা